Press "Enter" to skip to content

মানসিক রোগে ভুগছেন প্রাক্তন প্রার্থী, বাড়িতে গিয়ে পা ছুঁয়ে প্রণাম করে এলেন চন্দনা


বাঁকুড়াঃ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর স্বপ্ন নিয়ে একুশের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির টিকিটে বাঁকুড়ার শালতোড়া কেন্দ্র থেকে প্রার্থী হয়েছিলেন সাধারণ রাজমিস্ত্রীর সহধর্মিণী চন্দনা বাউরি (Chandana Bauri)। বিজেপির টিকিট পেয়ে প্রার্থী হওয়ার পর থেকেই চন্দনা সোশ্যাল মিডিয়ায় তুমুল হারে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। আর ওনার এই জনপ্রিয়তার জন্য খোদ মহাগুরু মিঠুন চক্রবর্তী ওনার কেন্দ্রে গিয়ে রোড শো করে আসেন। নির্বাচনের আগেই জনপ্রিয়তার শিখরে পৌঁছে গিয়েছিলেন চন্দনা। আর তাঁর ফল স্বরুপ ওই কেন্দ্রের হেভিওয়েট প্রার্থী তথা দুবারের বিধায়ককে হারিয়ে জয়লাভ করেন তিনি।

এরপর বিধানসভার শপথ গ্রহণের দিন তাঁকে বেশ ভারাক্রান্ত দেখা যায়। চন্দনা বলেন, আমার মতো একটা গরিব মানুষকে এভাবে সু দেওয়ার জন্য আমি ধন্যবাদ জানাই। নির্বাচনের আগে আমার লক্ষ্য ছিল এলাকার মানুষের কাছে প্রকৃত উন্নয়ন পৌঁছে দেওয়া। রাস্তাঘাট গড়ে দেওয়া এবং গরিব শিশুদের কাছে শিক্ষার আলো পৌঁছে দেওয়া। আমি ভোটে জিতে সেই কাজই করব। দলমত নির্বিশেষে আমি সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াব।

ভোটে জিতে এলাকার মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেখা গিয়েছে চন্দনাকে। কখনও পায়ে হেঁটে জনতার দুয়ারে দুয়ারে, আবার কখনও বাইকে করে মানুষের কাছে পৌঁছে গিয়ে সাহায্য করে এসেছেন চন্দনা। বিধানসভায় শপথ গ্রহণের পর চন্দনা বলেছিলেন, দরকারে আমি আমার বিধায়ক ভাতার টাকাও মানুষের মধ্যে বিলিয়ে দেব। আমি আমার এলাকার মানুষকে ভালো দেখতে চাই শুধু। ওটাই হবে আমার পারিশ্রমিক।

প্রতিদিনই চন্দনা প্রখর রোদ মাথায় করে এলাকায় ছুটে বেরাচ্ছেন। কখনও মানুষের কাছে তাঁদের সমস্য জানতে যাচ্ছেন। আবার কখনও বিডিও অফিসে গিয়ে মানুষের সমস্যা সমাধানের কথা জানিয়ে আসছেন। আর এভাবেই নিজ বিধানসভা কেন্দ্রের প্রাক্তন এক প্রার্থীর বাড়িতে পৌঁছে গেলেন চন্দনা। তাঁর পা ছুঁয়ে নমস্কারও করেন শালতোড়ার এই বিধায়ক।

চন্দনা টুইটারে একটি টুইট করে লিখেছেন, ‘1991সালে MLA দাড়িয়েছিলেন কর্ণ বাউরী। গ্ের নাম বিশিণ্ডা, অঞ্চল বনআশুড়িয়া,থানা গঙ্গাজল ঘাটী, শালতোড়া বিধানসভা উনি এক জন রাজমিস্ত্রিছিলেন 1991 সালে উনি লড়ায় করেছিলেন কিন্তু উনি হেরেগিয়েছিলেন। আজ উনি মানসিক ভারসাম‍্যহিন! আজ আমি উনাকে সম্মান জানিয়ে প্রণাম করে আসি।” চন্দনার করা এই টুইটটি সোশ্যাল মিডিয়ায় হয়ে যায়। সবাই ওনার এই কাজের প্রশংসা করেন।

https://platform.twitter.com/widgets.js