Press "Enter" to skip to content

মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা অমরিন্দর সিংয়ের, বললেন অপমান করা হয়েছে শীঘ্রই সিদ্ধান্ত নেব

নয়া দিল্লিঃ পাঞ্জাব কংগ্রেসের অন্তর্দ্বন্দ্ব বহুদিন ধরে উঠে আসছিল। আর সেই দ্বন্দ্বের কারণে এবার পাঞ্জাবে মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন ইস্তফা দিলেন। পাঞ্জাবের বিধায়ক দলের বৈঠকের আগে তিনি রাজভবনে পৌঁছে ইস্তফা দেন। সস্ত্রীক রাজভবনে গিয়ে নিজের ইস্তফা দেন মুখ্যমন্ত্রী। এরপর তিনি রাজভবনের বাইরে এসে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

ক্যাপ্টেন সাংবাদিকদের বলেন, আমি সকালেই ইস্তফা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। সকালে আমি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে এই বিষয়ে জানিয়েছি। হাইকম্যান্ড যখন যার উপরে ভরসা করে, তাঁকেই মুখ্যমন্ত্রী বানিয়ে দেয়। ক্যাপ্টেন ক্ষোভের সুরেই বলেন, এবার আমাকে অপমান করা হয়েছে। দুই মাসে তিনবার বিধায়ক দলের বৈঠক ডাকা হয়েছে। চালানো নিয়ে আমার উপর সন্দেহ করা হচ্ছে। আমি নিজেকে অপমানিত মনে করছি। আমি সমর্থকদের সঙ্গে কথা বলে আগামী দিনের রণনীতি স্থির করব। যদিও, তিনি এটা স্পষ্ট করেন নি যে উনি কংগ্রেসেই থাকবেন, না িতে যোগ েন?

পাঞ্জাব কংগ্রেসে কয়েকমাস ধরে চলা অন্তর্দ্বন্দ্ব সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিংয়ের ইস্তফায় গিয়ে ঠেকল। এখন পাঞ্জাবে দুটি বড় মুখ মুখ্যমন্ত্রী পদের জন্য উঠে আসছে। কংগ্রেস যদি কোনও হিন্দুকে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী করে, তবে সর্বপ্রথম নাম উঠে আসছে পাঞ্জাব কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি সুনীল জাখড়।

আর কংগ্রেস যদি কোনও সম্প্রদায়ের নেতাকে মুখ্যমন্ত্রী করে, তবে দৌড়ে সবার আগে রয়েছেন কংগ্রেসের নেতা নভজ্যোত সিং । তবে পাঞ্জাবে রাষ্ট্রপতি শাসন লাগু হওয়ারও চর্চা চলছে। আগামী বছর ফেব্রুয়ারি-মার্চ মাসে পাঞ্জাবে বিধানসভার নির্বাচন হবে।