Press "Enter" to skip to content

রাজদূতদের ফিরিয়ে আনা ঠিক হয়নি ভারতের, তালিবানরা আগের মতো নেইঃ যশবন্ত সিনহা

নয়া ের (India) প্রাক্তন বিদেশ মন্ত্রী তথা তৃণমূল নেতা যশবন্ত সিনহা (Yashwant Sinha) বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন যে, তালিবানদের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে ভারতকে নতুন করে ভাবনা চিন্তা করা উচিৎ। যশবন্ত সিনহা ভারতকে ে দূতা খোলার জন্যও পরামর্শ দিয়েছেন। সিনহা একটি সাক্ষাৎকারে বলেছেন, আফগানিস্তানের মানুষ ভারতকে খুব ভালোবাসে, তাঁরা পাকিস্তানকে ততটা পছন্দ করে না।

সিনহা বলেন, ভারত সরকারকে এটা ভাবা উচিৎ না যে তালিবান পাকিস্তানের কোলে বসে যাবে। কারণ প্রতিটি দেশই নিজের স্বার্থের কথা আগে ভাবে।

সিনহা বলেন, বড় দেশ হওয়ার সুবাদে ভারতের উচিৎ তালিবানের ইস্যুগুলি নিয়ে ভাবা। আর এই চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলতে হবে যে, পাকিস্তান আফগানিস্তানে কবজা করে নিয়ে সুবিধা পেয়ে যাবে। সিনহা বলেন, আসল সত্য হল, তালিবান আফগানিস্তানের বেশীরভাগ অংশে নিয়ন্ত্রণ রেখেছে, আর ভারতের উচিৎ অপেক্ষা করা এবং দেখার নীতি আপন করা। ভারত যেন চটজলদি তালিবান সরকারের স্বীকৃতি খারিজ করে ভুল না করে বসে।

সিনহা বলেন, ২০০১-র তালিবান আর ২০২১-র তালিবান এক নয়। দেখে অন্যরকম মনে হচ্ছে। তাঁরা এখন পরিপক্ব বয়ান দিচ্ছে। আমাদের উচিৎ সেদিকে ধ্যান দেওয়া। সিনহা বলেন, ওঁদের পুরনো ব্যবহার দেখে খারিজ না করে বর্তমান আর ভবিষ্যৎ দেখা উচিৎ।

উল্লেখ্য, অটল বিহারী বাজপেয়ী সরকারে যশবন্ত সিনহা বিদেশ মন্ত্রী ছিলেন। কিন্তু মোদী সরকারের আমলে তিনি বিজেপির সমালোচক হয়ে ওঠেন আর বাংলায় একুশের ের আগে তিনি তৃণমূলে দেন। বর্তমানে তিনি তৃণমূলের সর্বভারতীয় পদে আসীন রয়েছেন।

যশবন্ত সিনহা বলেন, কাবুলে তালিবানের কবজার পর ভারতীয় দূতাবাস বন্ধ করা আর ভারতীয়দের সেখান থেকে ফিরিয়ে আনার বদলে অপেক্ষা করার দরকার ছিল। উল্লেখ্য, আফগানিস্তানে বেড়ে চলা উত্তাপের মধ্যে মঙ্গলবার ভারতীয় রাজদূত রুদ্রেন্দ্র টন্ডন আর কাবুলের দূতাবাসের কর্মীদের ফিরিয়ে আনা হয়েছে।