Press "Enter" to skip to content

রাজ্য সরকারকে হাইভোল্টেজ ঝটকা দিল হাইকোর্ট! CBI কে দেওয়া হলো ফ্রী-হ্যান্ড


রাজ্যের আওতাভুক্ত যে কোনও জায়গায় তদন্ত করতে গেলে সিবিআই-কে আগে ের কাছে লিখিত অনুমতি নিতে হবে, এর কোনও যুক্তি নেই। ও কয়লা পাচার কাণ্ডে বিনয় মিশ্রের মামলার রায়দান করতে গিয়ে বুধবার এমনটাই বলেছেন বিচারপতি তীর্থঙ্কর ঘোষ। আইনজীবী মহলের ধারণা, আদালতের এই বিশেষ পর্যবেক্ষণ আগামী সময় যে কোনও মামলায় সিবিআই-এর কাজকে অনেকটাই সহজ করে ে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এ রাজ্যের আওতাভুক্ত যে কোনও এলাকায় তদন্ত করতে গেলে রাজ্যের তরফে অনুমতি নিতে হবে, এই মর্মে ২০১৮ সালে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল রাজ্য সরকার। কী কারণে রাজ্যের তরফে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল, সেটা অবশ্য কোথাও উল্লেখ নেই ওই বিজ্ঞপ্তিতে। সেই কারণে ওই বিজ্ঞপ্তির কোনও বৈধতা নেই। ঠিক এই কারণেই সিবিআই রাজ্যের যে কোনও জায়গায় স্বাধীনভাবে তদন্ত করতে পারে। এই মর্মে পর্যবেক্ষণ ের সিঙ্গল বেঞ্চের বিচারপতি তীর্থঙ্কর ঘোষের।

গরু ও কয়লা পাচার কাণ্ডের অন্যতম অভিযুক্ত বিনয় মিশ্র হাইকোর্টে সিবিআই তদন্ত খারিজের আবেদন করে মামলা দায়ের করেছেন। সেই মামলা চলাকালীন বিনয়ের আইনজীবী অভিষেক মনু সিংভি বলেছেন, বিনয় যেহেতু এ দেশের বাসিন্দা নয় তাই তাকে জেরা করতে চাইলে সিবিআইকে কনফারেন্সে করতে হবে। সিবিআই এ বিষয়ে পালটা যুক্তি দিয়ে বলেছে, কয়লা ও গরুপাচার কাণ্ডে এবং রেলের বড়‌ বড় অফিসারদের নাম এসেছে।

সেক্ষেত্রে তদন্তের শুরু করতে হবে এ রাজ্যে। ফলত তদন্ত শুরু করতে গেলে রাজ্য সরকারের কাছে অনুমতি নিতে হবে কিনা, সেই প্রশ্নও উঠে এসেছে। বিচারপতি সে পরিপ্রেক্ষিতে জানিয়েছেন, রাজ্য সরকার ২০১৮ সালে যে পদ্ধতিতে জেনারেল কনসেন্ট বা সাধারণ সম্মতি তুলে নিয়েছে, তার বাস্তব কোনও ভিত্তি নেই। ফলে রাজ্যের কোনো এলাকায় তদন্ত করতে গেলে রাজ্য সরকারের কাছে অনুমতির প্রয়োজন নেই কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এর আগেও কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার কুমার মামলা চলাকালীন এই সাধারণ সম্মতি নেওয়ার যুক্তি দেখিয়েছিল রাজ্য। বুধবারের রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি জানিয়েছেন, সিবিআই তদন্ত যে পর্যায়ে পৌঁছেছে, সেখানে বিনয়ের আবেদনে সাড়া দেওয়ার অর্থ খুঁজে পায়নি আদালত। আসলে বিনয়কে চেপে ধরে জেরা করতেই আরও বড় নাম উঠে আসতে পারে বলেই ভেবেছিল সিবিআই। সেই রাস্তা এই রায়দানের পর আরও মসৃণ হবে বলেই মনে করা হচ্ছে।