Press "Enter" to skip to content

রাম মন্দির এতটাই উঁচু হতে হবে, যাতে পাকিস্তানের ইসলামাবাদ থেক দেখা যায়ঃ বিশ্ব হিন্দু পরিষদ

নয়া দিল্লীঃ দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court) দেশে ের () পথ প্রসস্থ করেছে। গত বছর ৯ নভেম্বর রাম মন্দিরের পক্ষে রায় দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। এরপর সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সম্প্রতি রাম মন্দির নির্মাণের জন্য ট্রাস্ট গঠন করেছে কেন্দ্র সরকার। এমনকি ওই ট্রাস্টে সর্বপ্রথম ১ টাকা দান করে শুভ সূচনা করে মোদী সরকার। এমনও শোনা যাচ্ছে যে, আগামী রামনবমী থেকে অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণের কাজ শুরু হতে চলেছে।

আর এরই মধ্যে () এর কার্যকরী সভাপতি রাম বিলাস বেদান্তি দাবি করেছেন যে, রাম মন্দির নির্মাণের জন্য আরও জমি চাই। এর তরফ থেকে দাবি করা হয়েছে যে, রাম মন্দির নির্মাণের জন্য যেই ৬৭ একর জমি রয়েছে, সেখানে সুবিশাল মন্দির তৈরি সম্ভব না। গগনচুম্বী মন্দির তৈরির জন্য চাই আরও জমি।

রাম বিলাস বেদান্তি দাবি করে বলেন যে, অযোধ্যায় রাম মন্দির অবশ্যই সুবিশাল হতে হবে। মন্দির এতটাই সুবিশাল হতে হবে যে, শ্রীলঙ্কার কলম্বো, পাকিস্তানের ইসলামাবাদ আর নেপালের কাঠমাণ্ডু থেকে যেন দেখা যায়। তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ নিজেই বলেছেন যে, গগনচুম্বী রাম মন্দির হবে। উনি বলেন, গগনচুম্বী রাম মন্দির তৈরি করতে দরকার আরও জমি।

বেদান্তিকে যখন জিজ্ঞাসা করা হয় যে, রাম মন্দির নিয়ে যারা এতদিন লড়ে এসেছেন তাঁদের রাম মন্দির ট্রাস্টে নাম নেই কেন? তখন তিনি বলেন, রাম মন্দিরের জন্য যারা লড়াই করেছেন তাঁরা অনেকেই নির্বাচনে লড়াই করেছেন। আর তাঁদের অনেকের নামে মামলাও রয়েছে। সেই হিসেবেই রাম মন্দির ট্রাস্টে তাঁদের নাম রাখা হয়নি।