Press "Enter" to skip to content

শত্রুর অ্যাকাউন্টে ভুলবশত টাকা পাঠিয়ে বিপাকে তালিবান, ফেরত পেতে এখন করছে কান্নাকাটি

[ad_1]

নয়া দিল্লিঃ নুন আনতে পান্তা ফোরায় … এই কথা শুনেছেন নিশ্চই? এরকমই কিছু ঘটে গেল আফগানিস্তানের (Afghanistan) নতুন শাসক তালিবানদের সঙ্গে। আসলে, তালিবান এমনিতেই আর্থিক সংকটে ভুগছে, আর এরই মধ্যে ভুলবশত তাঁরা শত্রুদের অ্যাকাউন্টে বিপুল টাকা ঢুকিয়ে দিয়ে বড়সড় বিপাকে পড়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী, তালিবান ভুল করে তাজিকিস্তানে (Tajikistan) নিজেদের দূতাবাসের অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠিয়েছে, আর সেই টাকা তাজিকিস্তান এখন ফেরত দেবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে। বলে রাখি, তাজিকিস্তান আফগানিস্তানের নতুন শাসক তালিবানের ঘোর বিরোধী বলেই পরিচিত।

তাজিকিস্তানের রাজধানী দুশানবের একটি সংবাদমাধ্যম Avesta কিছুদিন আগে এই খবর প্রকাশিত করেছিল। তাঁদের মতে তালিবান প্রায় ৮ লক্ষ ডলার (৬ কোটি ভারতীয় মুদ্রা) তাজিকিস্তানের আফগানি দূতাবাসের অ্যাকাউন্টে পাঠিয়েছিল। তালিবানের এই কাজ করা উচিৎ ছিল না, তাঁরা এটা ভুলবশতই করেছে বলে রিপোর্টে বলা হয়েছে।

মিডিয়া রিপোর্টস অনুযায়ী, এই টাকা আফগানিস্তানের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি আশরফ গনির সরকার দ্বারা পাঠানো হট। এই টাকার ব্যবহার তাজিকিস্তানের শরণার্থী বাচ্চাদের জন্য গড়া স্কুলে ব্যবহার করা হত। তবে, তালিবান যখন আফগানিস্তানে কবজা করে নেয় আর আশরফ গনি দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান, তখন এই লেনদেন বন্ধ হয়ে যায়।

গনি দেশ ছেড়ে পালানোর কয়েক সপ্তাহ পর সেপ্টেম্বর মাসে টাকা ট্র্যান্সফার করা হয়েছিল। সেই সময় তালিবান কিছু বলেনি। কিন্তু নভেম্বর মাসে আফগানিস্তানের অর্থনিতি মুখ থুবড়ে পড়ে যায়। আর এরপরেই তালিবানরা তাজিকিস্তান সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করে সেই টাকা ফেরত চায়। কিন্তু তাজিকিস্তান সেই টাকা ফেরত দিতে অস্বীকার করে।

তাজিকিস্তান জানিয়েছে যে, ওই টাকা দিয়ে তাঁরা স্কুল গড়েনি ঠিকই, কিন্তু সেই টাকার ব্যবহার তাঁরা ব্যয়গত চার মাস ধরে শিক্ষক আর দূতাবাসের কর্মীদের বেতন দেওয়ার জন্য ব্যবহার করেছে। সব টাকাই দূতাবাস আর আফগানি নাগরিকদের প্রয়োজনে খরচ হয়েছে বলে জানিয়েছে তাজিকিস্তান। বলে রাখি, তাজিকিস্তান সরকার অফিসিয়ালি ভাবে তালিবানকে জঙ্গি সংগঠন হিসেবেই মান্যতা দেয়। আর এই কারণেই এখন এই টাকা তালিবানের হাতে ফেরত যাওয়া প্রায় অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে।

[ad_2]