Press "Enter" to skip to content

শিক্ষাক্ষেত্রে মুছে গেল সায়েন্স ও আর্টসের পার্থক্য! বড়ো পদক্ষেপ মোদী সরকারের

ভারতের শিক্ষা বাবস্থা পাল্টে দেওয়ার উপর পদক্ষেপ গ্রহণ করল মোদী সরকার। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক করে দেওয়া হয়েছে। একইসাথে শিক্ষার পুরো ব্যাবস্থাকে পাল্টে ফেলতে ISRO এর প্রাক্তন এক বিজ্ঞানীর নেতৃত্বে নতুন নীতি গঠন করা হয়েছে। মোদী ক্যাবিনেট নতুন শিক্ষানীতিকে (NEP) মঞ্জুরী দিয়েছে বলেও খবর সামনে আসছে।

এই পরিপ্রেক্ষিতে দশম শ্রেণীর মাধ্যমিক পরীক্ষা গুরুত্বহীন হয়ে পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। একই সাথে কলা ও বিজ্ঞান বিভাগের ভেদাভেদও বিলুপ্ত হতে চলেছে। নতুন শিক্ষানীতি অনুযায়ী একজন শিক্ষার্থী কলা বিভাগ ও বিজ্ঞান বিভাগের মিলিয়ে যা ইচ্ছা বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করতে পারবে।

 

এতদিন অবধি কলা বিভাগের ছাত্ররা শুধু কলা বিভাগের বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করতে পারতো। একইভাবে বিজ্ঞানবিভাগের শিক্ষার্থীরা কলা বিভাগের বিষয় নিতে পারতো না। তবে NEP এর নতুন নিয়ম অনুযায়ী এবার আর্টস ও সায়েন্স এর পার্থক্য বিলুপ্ত হতে চলেছে।

আজকের দিনে দাঁড়িয়ে একজন জাপানি যখন জাপানি ভাষায় উচ্চতর বিজ্ঞানের জ্ঞানলাভ করে, একজন জার্মান জার্মানী ভাষায় বিজ্ঞান চর্চা করে তখন একজন ভারতীয় তার স্থানীয় ভাষায় বিজ্ঞানের জ্ঞান লাভের সুযোগ পায় না। একজন ভারতীয়কে উচ্চমাধ্যমিকের পর থেকে বিজ্ঞানের জ্ঞান লাভের জন্য ইংরাজি ভাষার উপর ভরসা করে থাকতে হয়।

আর যেহেতু ইংরাজি একটা বিদেশী ভাষা তাই বহু প্রতিভাশালী ছাত্র শুধুমাত্র ভাষার ভয়ে জ্ঞানলাভ থেকে বঞ্চিত হয়। মোদী সরকার নতুন শিক্ষানীতিতে ভারতীয় ভাষাকে আরো বেশি প্রভাবশালী করার উপরেও জোর দিয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। ভারতের সমস্ত স্থানীয় ভাষার সাথে সাথে সংস্কৃত ভাষার উপরেও বিশেষ জোর দেওয়া হবে। প্রসঙ্গত জানিয়েছে দি, ভারতের শিক্ষাব্যাবস্থার পরিবর্তন তথা NEP এর লাগু বিজেপির নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির অন্তর্গত ছিল। প্রসঙ্গত জানিয়ে দি, শিক্ষানীতি পরিবর্তন হওয়ার খবর সামনে আসতেই অনেকে ভারতের ইতিহাস পাঠ্যপুস্তক পরিবর্তন করার বিষয়ে সরকারকে আবেদন করেছেন।