Press "Enter" to skip to content

সকলকে অবাক করে ট্যাক্স সংগ্রহে ইতিহাস সৃষ্টি করলো মোদী সরকার।

ে উন্নতির সমস্থকিছু নির্ভর করে সাধারণ মানুষের ট্যাক্স এর উপর। দেশের মানুষের টাকার উপর নির্ভর করেই সড়ক,স্কুল,কলেজ,হাসপাতাল সমস্থকিছু তৈরী হয়। কিন্তু দুঃখের বিষয় এই যে ে খুব কম সংখক মানুষ প্রদান করেন। আর এই কারণে ভারতের উন্নতির হার খুব কম ছিল। তবে আসার পর ভারতে ট্যাক্স দেওয়া মানুষের সংখ্যা যে হারে বেড়েছে তার পরিসংখ্যান জানার পর আপনিও হতবাক হবেন।

তবে ের আমলে কেন্দ্রের কিছু বড়ো পদক্ষেপ, ভারতের এই ট্যাক্স প্রদানের সংখ্যা প্রচুর পরিমান বাড়িয়ে ইতিহাস তৈরি করেছে। আসলে ভারতবর্ষ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে কংগ্রেস সব থেকে বেশি সময় ধরে শাসন করেছে ভারতবর্ষে আর এই সময় অর্থাৎ ১৯৪৭ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত ভারতে ৩.৯৭ কোটি মানুষ ডাইরেক্ট ট্যাক্সসেশন ফাইল করতেন।

অর্থাৎ ১২৫ কোটি মানুষের ভার এতদিন মাত্র ৩.৯৭ কোটি মানুষ বহন করতেন। পরিবার হিসেবে হিসাব করলে প্রায় ২৫ কোটি মানুষের ভার বহন করতো মাত্র ৩.৯৭ কোটি ট্যাক্সপেয়ার। কিন্তু জানলে অবাক হবেন মোদী সরকার আসার পর সেই ট্যাক্স পেয়ার এর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬.৮৪ কোটি। অর্থাৎ ট্যাক্স দেওয়া ব্যাক্তির সংখ্যা বেড়ে দ্বিগুন হয়েছে মাত্র ৪ বছরে।আপনারা জেনে খুশি হবে ইতিহাসে এই প্রথমবার ভারত ১০ লক্ষ কোটি টাকা ডাইরেক্ট ট্যাক্সসেশন থেকে অর্জন করেছে।
অন্যদিকে ইনডাইরেক্ট টেক্সেসন এ আগে ৬৫ লক্ষ থেকে ৭০ লক্ষ ট্রেডার ট্যাক্স মেটাতেন কিন্তু GST চালু হওয়ার পর এখন সেই সংখ্যা এসে দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ১০ লক্ষ।

এই তথ্য থেকে ২ তো জিনিস অবাক করার বিষয় বেরিয়ে এসেছে। প্রথমত, হটাৎ করে ডাইরেক্ট ট্যাক্স দেওয়া মানুষের সংখ্যা কিভাবে দ্বিগুন হলো? অথবা ৪০ লক্ষ ট্রেডার সংখ্যা কিভাবে বেড়ে গেল? আপনাদের জানিয়ে রাখি মোদী সরকার সম্পূর্ণ পরিকল্পনা করে এই ট্যাক্স সংগ্রহ করেছে। নোটবন্দি এবং GST এই পরিকল্পনার অংশ।

আপনাদের জানিয়ে রাখি দেশের বিক্রিত মিডিয়া এই বিষয়ে সমস্ত তথ্যই জানে কিন্তু তারা সাধারণ মানুষকে এই তথ্য জানাবে না। জানালে তাদের ব্যাঙ্ক ব্যালান্স একটু হলেও কমে যেতে পারে।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.