Press "Enter" to skip to content

“সিঙ্গাপুরে সোনা চুরি করেও কাগজ দেখাতে পারেনি”-CAA প্রসঙ্গে স্বস্তিকা মুখার্জীকে আক্রমন বিজেপির।


CAA ও NRC নিয়ে বিরোধীদের তীব্র বিরোধ দেখা মেলার পর এবার তথাকথিত বুদ্ধিজীবীরা মুখ খুলতে শুরু করেছেন। CAA আইন তৈরি হওয়ার পর থেকে দেশজুড়ে ঊত্তপ্ত পরিস্থিতি উৎপন্ন হয়েছিল। CAA আইনের বিরোধে পশ্চিমবঙ্গে বহু ট্রেন, রেল স্টেশন, বাস ও অন্যান্য সরকারি সম্পত্তি যে আগুন জ্বালিয়েছিল প্রতিবাদকারীরা। দিল্লী ও উত্তরপ্রদেশেও একই ছবি দেখা মিলেছিল। যদিও দিল্লী ও উত্তরপ্রদেশে পুলিশ তদন্তের পর জানিয়ে ছিল সরকারি সম্পত্তি নষ্ট ও উপদ্রবে অবৈধ বাংলাদেশি ও PFI এর হাত রয়েছে। এখন কট্টরপন্থীদের বিরোধের পর তথাকথিত বুদ্ধিজীবী মাঠে নেমে পড়ছে। পশ্চিমবঙ্গের টলিউড তথা সিনেমা জগতের কিছুজন এখন NRC ও CAA এর বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছেন।

টলিউড জগতের বিশিষ্ট বর্গরা CAA-NRC এর প্রতিবাদ করার জন্য কবিতাও তৈরি করে ফেলেছেন। কবিতার নাম- কাগজ আমরা দেখাবো না। কবিতায় মূলত বলা হয়েছে শাসক আসবে যাবে কিন্তু আমরা কাজগ দেখাবো না। প্রতিবাদীদের উপর লাঠিচার্জ করলেও কাগজ আমরা দেখাবো না। কবিতা পাঠ করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন সব্যসাচী চক্রবর্তী, স্বস্তিকা, রুপম ইসলামের মতো সেলিব্রেটিরা। রূপম ইসলাম, স্বস্তিকা সকলেই এক সুরে বলেছেন এ লড়াই চলছে চলবে কিন্তু কাগজ আমরা দেখাবো না।

এখন এই কাজগ না দেখানোর বিষয়ের উপর বঙ্গবিজেপির নেতারা যা প্রতিক্রিয়া দিয়েছে তা দেখার মতো। বঙ্গবজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, সত্যই অনেকের কাছে কাগজ নেই, কারণ সোনা চুরি করেও তারা কাগজ দেখাতে পারেননি। দিলীপ ঘোষ মূলত অভিনেত্রী স্বস্তিকাকে নিয়ে একথা বলেছেন। স্বস্তিকার বিরুদ্ধে বিদেশে যে চুরির অভিযোগ রয়েছে। সিঙ্গাপুরে এক শপিং মলে সোনার একটা ঝুমকা চুরির অভিযোগ উঠেছিল অভিনেত্রী স্বস্তিকা মুখার্জীর (Swastika Mukherjee) উপর সেই প্রসঙ্গ তুলেই আক্রমন করেন দিলীপ ঘোষ। বাংলার বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ ছাড়াও সোশ্যাল মিডিয়াতেও বিজেপি সমর্থকরা স্বস্তিকাকে নিয়ে ব্যাঙ্গ শুরু করেছে।

https://platform.twitter.com/widgets.js

বিষ্ণুপুর থেকে বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ বলেছেন, “আধার কার্ড করাতে কোনো কষ্ট হয়নি, কষ্ট আপনাদের হয়েছে। কারণ আপনাদের মাসিক টাকাটা ঢুকবে না। আগে টাকা সিপিএম দিত এখন মমতা ব্যানার্জী দেওয়ার চেষ্টা করছে। আপনারা একবার আমেরিকা ঘুরে আসুন, তখন তো গ্রীন কার্ড বের করছেন। আর এখানে বলেছেন কাগজ আমরা দেখাবো না। CAA হচ্ছে এবং CAA হবে। বাংলাকে এই করেই আপনারা নষ্ট করেছেন।”