Press "Enter" to skip to content

সুড়ঙ্গের ১৫০ ফুট ভিতরে ঢুকে পাকিস্তানের মুখোশ খুলল BSF জওয়ান, মিলল লাহোরে বানানো বিস্কুটের প্যাকেট

শ্রীনগরঃ জম্মু কাশ্মীরের নগরোটায় সুড়ঙ্গ দিয়ে ে () জঙ্গিদের অনুপ্রবেশ ীয় সেনার জওয়ানরা ব্যর্থ করে দিয়েছে। এবার ীয় সেনা এই মামলায় নানান প্রমাণ জড়ো করায় লেগেছে। আর সেই ক্রমেই সেনা ২০০ মিটার দীর্ঘ সুরঙ্গে ১৫০ ফুট পর্যন্ত পৌঁছায়। জানিয়ে দিই, ১৯ নভেম্বর নগরোটায় সেনা আর জঙ্গিদের মধ্যে লড়াই হয়েছিল। এই লড়াইয়ে সেনা চার জঙ্গিকে নিকেশ করে। এই জঙ্গিরা ২৬/১১ এর মতো বড়সড় কিছু করার প্ল্যানে ে এসেছিল।

বিএসএফ () এর মহানির্দেশক রাকেশ আস্থানা সোমবার জম্মু কাশ্মীরের সাম্বা আর রাজৌরী সেক্টরে পাকিস্তানের () পাশে থাকা সীমান্তবর্তী এলাকায় পেট্রোলিং বাড়ানোর নির্দেশ দেন। সেনা দ্বারা পেট্রোলিং বাড়ানোর প্রধান উদ্দেশ্য হল সেই সুড়ঙ্গের খোঁজ করা জেগুলর মাধ্যমে জইশ এর চার জঙ্গি ভারতে ঢুকেছিল। আপাতত, ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা গুলো জইশ এর ওই চার জঙ্গি নাম আর তাঁদের জঙ্গি গতিবিধির তদন্ত চালাচ্ছে।

আরেকদিকে, এই মামলায়  তদন্তের তথ্য রাখা অফিসারের জানান যে, এটা স্পষ্ট যে জঙ্গিরা ১৯ নভেম্বরের রাত বাইরে বের হওয়ার আগে ওই সুড়ঙ্গের মধ্যেই লুকিয়ে ছিল।

উনি জানান, ১৭৩ ব্যাটেলিয়নের কমান্ডেন্ট রাঠৌর ওনাকে বলেছেন যে, জইশের জঙ্গিদের দ্বারা ব্যবহার করা সুড়ঙ্গে সেনা জওয়ান প্রায় ১৫০ ফুট ভিতরে চলে গিয়েছিল। সেখানে জওয়ান বিস্কুটের প্যাকেট আর অন্যান্য খাদ্য সামগ্রীর র‍্যাপার উদ্ধার করে। প্যাকেটে লাহোরের কোম্পানি ‘মাস্টার কুজিন কাপকেক” নাম লেখা আছে। এছাড়াও প্যাকেট তৈরি তারিখ মে ২০২০ আর এক্সপায়েরি ডেট ১৭ নভেম্বর ২০২০ লেখা আছে।

ঘটনাক্রমের সাথে পরিচিত মানুষেরা জানান, নিশ্চিত রুপে সীমান্তের ওপারে পাকিস্তানি রেঞ্জার্স এই জঙ্গিদের সাহাজ্য করছে। গোয়েন্দা বিভাগের তদন্তে জানা গিয়েছে যে, চার জঙ্গিকেই শাকরগড় ক্যাম্প থেকে লঞ্চ করা হয়েছে আর রামগড় এবং হীরানগর সেক্টরের মধ্যে সাম্বা জেলার মাবার দিকে নিয়ে যাওয়া হয়। পিক-আপ পয়েন্ট জটবাল গ্রাম ছিল, সেটি পাকিস্তানের নগবালে পড়ে।

যদিও পাকিস্তানের সমস্ত ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়ে যায় আর চার জইশ এর জঙ্গিকে নিকেশ করে এক বড়সড় বিপদ থেকে আবারও ভারতকে রক্ষা করে সেনা বাহিনী।