Press "Enter" to skip to content

সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রোজেক্ট আটকাতে চাওয়া বুদ্ধিজীবীদের ১ লক্ষ টাকা জরিমানা দিতে বলল সুপ্রিমকোর্ট

সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রোজেক্ট এর ঘোষণা হওয়ার পর থেকে কিছু রাজনৈতিক পার্টির পেটে ব্যথা শুরু হয়েছে। করে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রোজেক্ট এর বিরুদ্ধে কোমর বেঁধে মাঠে নেমে পড়েছে। সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রোজেক্টের বিরোধিতা করে দুই বুদ্ধিজীবী সোহেল হাসমি ও অন্যন্যা মালহোত্রা সুপ্রিম কোর্টের দারস্ত হয়েছিলেন। সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রোজেক্ট বন্ধ করার আবেদন জানিয়ে সুপ্রীমকোর্টে করেছিলেন দুই বুদ্ধিজীবী।

তবে দুই বুদ্ধিজীবীর কথা শোনা তো দূর প্লাটা দুজনের উপর ১ লক্ষ টাকা জরিমানার চাবুক চালিয়েছে আদালত। সোহেল হাসমি একজন ইতিহাসবিদ হিসেবে পরিচিত অন্যদিকে অন্যন্যা মালহোত্রা একজন অনুবাদক। দুই বুদ্ধিজীবীর দাবি ছিল, যেহেতু এখন করোনার সময়কাল তাই সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রোজেক্ট বন্ধ করা উচিত।

অবশ্য সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রোজেক্টের জন্য শ্রমিকের প্রয়োজন, চিকিৎসকের নয় এটা কেন বুদ্ধিজীবীরা নিজেদের বুদ্ধির দ্বারা বুঝতে পারেনি তা সাধারণ জনগন বুঝে উঠতে পারেনি। অনেকে দাবি করেছেন বুদ্ধিজীবীরা রাজনৈতিক পার্টির অঙ্গুলি হেলনে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন।

জানিয়ে দি, বহ চিন্তা ভাবনার পর সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রোজেক্টের পরিকল্পনা করা হয়েছে। পুরনো সংসদ ভবন ১৯২১ সালে নির্মিত হয়েছিল অর্থাৎ ১০০ বছর পূর্ণ হয়েছে। যে কারণে ভবন দুর্বল হয়ে পড়েছে। একই সাথে ভূমিকম্পের দরুন এই ভবন বিপদজনকভাবে ভেঙে পড়তে পারে বলেও বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন। অর্থাৎ একটা বড়ো দুর্ঘটনা পুরো দেশকে নেতৃত্ব বিহীন করে দিতে পারে। শুধু এই নয়, বেশকিছু ি দপ্তরের জন্য সরকারকে হাজার হাজার টাকা ভাড়া দিতে হয়। সেন্ট্রাল ভিস্তা সম্পূর্ণ হলে একটা বড়ো অংকের মোটা টাকা বাঁচবে।