Press "Enter" to skip to content

হটাৎ করে কেন মোদী সরকার পিডিপির থেকে সমর্থন সরিয়ে নিলো জানলে আপনিও গর্বিত হবেন।

জম্মুকাশ্মীরে আজ হটাৎ করেই পিডিপির উপর থেকে সমর্থন উঠিয়ে নেওয়ার পর থেকে রাজনৈতিক মহলে তোলপাড় শুরু হয়েছে। বর্তমানে সবার মনে একটাই প্রশ্ন উঠেছে, বিজেপি হটাৎ করে এমন সিদ্ধান্ত কেন নিলো? এর কারণ জানতে হলে আপনাদের কিছু মাস পেছনের দিকে যেতে হবে।

সরকার কেন্দ্রে আসার পর থেকে যতবার কাশ্মীর ঘাঁটি থেকে জঙ্গিদের দমন করার পদক্ষেপ নিয়েছে ততবার মেহবুবা মুফতি পথের বাঁধা হয়ে বসেছে। উদাহরণসরূপ যখন পাথরবাজদের ধরে বন্দি বানাতে শুরু করেছিল তার কিছু মাস পরেই মেহবুবা মুফতি শান্তির দোহাই দিয়ে পাথরবাজদের মুক্ত করার চাপ দিতে শুরু করে।

আরোও পড়ুন – আবার হল তৃণমূলে বড়সর ভাঙ্গন , জানেন কোথায় ?

শুধু এই নয় আপনাদের হয়তো ে কিভাবে এক যুবক ও বিজেপি নেতাকে বিনা কারণে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছিল। জম্মুর জনগণ CBI তদন্তের দাবি তুললেও মেহবুবা তার নিজস্ব তদন্তকারী সংস্থাকে দিয়েই মামলার তদন্ত করিয়েছিল।

সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ব্যাপার কেন্দ্র রমজান মাসে সেনার অপারেশন চালু রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল কিন্তু মেহবুবা মুফতির চাপে অপারেশন বন্ধ রাখতে চেয়েছিল যার সুযোগ নিয়ে পাকিস্তান ভারতের বেশ ভালো রকম ক্ষতি করেছে। এমনকি এখন রমজান মাস শেষ হওয়ার পরে কেন্দ্র কড়াভাবে জানিয়ে দেয় , কাশ্মীরে এবার ‘অপারেশন অল আউট’ চালু করা হবে। কিন্তু মেহবুবা মুফতি এক্ষেত্রেও বিরোধিতায় নেমে পড়ে।

আরও পড়ুন- আপনি ঈদ পালন করেননি, তাহলে কি আমরা আপনাকে হিন্দু নেতা বলতে পারি?” এই প্রশ্নের উত্তরে যোগী আদিত্যনাথ যা উত্তর দিলেন

আপনারা জানলে অবাক হবেন বিজেপি সরকার ভাঙার আগে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ সুরক্ষা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সাথেও কথা বলেন। এর অর্থ এই যে মেহবুবা মুফতি যেভাবে -কাশ্মীরকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে তা কখনোই দেশের জন্য ভালো নয় তাই এই সরকার ভেঙে ফেলার মতোই হয়ত সংকেত অজিত ডোভাল দিয়েছেন।কারণ কাশ্মীরে জঙ্গিসমর্থনকারী পাথরবাজরা সেনারদিকে পাথর ছুঁড়লেও রাজ্য সরকার এইবাপরে তাদের বিরুদ্ধে নরমপন্থী রুপ দেখিয়ে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।ফলে ক্ষতি হয়েছে সুরক্ষা বাহিনীর।

আরোও পড়ুন – আবার ইতিহাস গড়লেন মোদীজি

আপনাদের জানিয়ে এই সরকার ভাঙার পিছনে আরেকটা যে বড়ো কারনকে দাবি করা হচ্ছে তা হলো ৩৭০ ধারার বিলুপ্তিকরন। এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই যে, এই ধারার বিলুপ্ত হলে কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা মুছে ফেললে ঘাঁটির ৯০% সমস্যা মিটে যাবে। তবে ৩৭০ ধারা মুছে ফেলা এত সহজ কাজ নয় কারণ এই বিল সব জায়গায় পাস হলেও জম্মুকাশ্মীর এসেম্বলিতে পাস করানো অনেকটা মুশকিল তবে মোদী সরকার চাইবে যেভাবেই হোক জম্মুকাশ্মীরে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করে সেনার হাতে সর্বোচ্চ ক্ষমতা প্রদান করা যাতে সেনা ঘাঁটিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে এবং জঙ্গিদের চিরতরে মুছে ফেলতে পারে।

আরোও পড়ুন- 2019 এ বিরোধীদের চিত করার জন্য মোদীজির নতুন মাস্টার প্ল্যান ![sg_popup id=”1″ event=”onload”][/sg_popup]

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.