Press "Enter" to skip to content

হয়ত ইস্তফা দিতে হতে পারে মমতাকে! টুইটে গুরুতর অভিযোগ তৃণমূলের শীর্ষ নেতার


নয়া দিল্লীঃ প্রাক্তন তথা যশবন্ত সিনহার (Yashwant Sinha) একটি টুইট ঘিরে রাজ্য রাজনীতিতে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। শনিবার যশবন্ত সিনহা একটি টুইট করে লেখেন, ‘একটি ছোট পাখির থেকে জানতে পেরেছি যে, নির্বাচন কমিশন আগামী কয়েক মাস কোনও নির্বাচন করাবে না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) যাতে ৬ মাসের মধ্যে বিধানসভায় না যেতে পারেন, সেটার জোগাড় চলছে।” যশবন্ত সিনহার এই টুইটের পর তুমুল অস্বস্তিতে পড়ে যায় শাসক দল। কারণ যেই করেই হোক মুখ্যমন্ত্রী মমতাকে আগামী ৫ মাসের মধ্যে কোনও একটি কেন্দ্র থেকে নির্বাচনে জয়ী হয়ে বিধানসভায় যেতে হবে, নাহলে ওনার মুখ্যমন্ত্রী পদ থাকবে না।

বলে দিই, ২ মে তৃণমূল জিতেছে এরপর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথও নিয়েছেন। উনি শপথ নিয়েছেন ঠিকই, কিন্তু উনি জয়ী বিধায়ক নন। কারণ নন্দীগ্রাম কেন্দ্রে ি নেতা শুভেন্দু অধিকারীর কাছে উনি পরাজিত হয়েছেন। তাই আগামী ছয় মাসের মধ্যে ওনাকে ভোটে জয়ী হয়ে আসতে হবে। যদিও ছয় মাসের মধ্যে একমাস কেটে গিয়েছে। হাতে রয়েছে আর পাঁচ মাস মাত্র। মুখ্যমন্ত্রী পদে বহাল থাকতে হলে ওনাকে বিধানসভার সদস্য হতেই হবে এটাই নিয়ম।

আরেকদিকে, তৃণমূলের তরফ থেকে রাজ্যে উপনির্বাচন করানো নিয়ে তোড়জোড় করতে দেখা গিয়েছে। কিন্তু শাসক দল তোড়জোড় করলেও নির্বাচন কমিশন এই মুহূর্তে কোনও উচ্চবাচ্চ করছে না, আর এই নিয়েই যত সমস্যা। পশ্চিমবঙ্গে ছয়টি বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচন হওয়ার কথা। দুটি মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জ আর জঙ্গিপুর। একটি খড়দহ, একটি শান্তিপুর, একটি দিনহাটা আর একটি ভবানীপুর। এই ভবানীপুর কেন্দ্র থেকেই উপনির্বাচনে লড়বেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু কমিশনের তরফ থেকে এখন উপনির্বাচন করানো নিয়ে কোনও ইঙ্গিত পাওয়া যায় নি।