Press "Enter" to skip to content

‘২০১৯ এ হারলেও যেন জীবনসঙ্গিনী পেয়ে যান রাহুল গান্ধী, এই প্রার্থনা গোরক্ষনাথ মন্দিরে।’

২০১৯ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাহুল গান্ধী জোরতার প্রচার শুরু করে দিয়েছে। কংগ্রেসে মহলের দাবি ২০১৯ এ দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী পদে বসবেন রাহুল গান্ধী। কিন্তু মহাজোট বন্ধন একদিকে যেমন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে তেমনি সম্প্রতি সার্ভে জানিয়ে দিচ্ছে যে ২০১৯ এ ভারতের প্রধানমন্ত্রী পদে বসার সৌভাগ্য সোনিয়া পুত্র রাহুলের হবে না। আপনাদের জানিয়ে রাখি কংগ্রেসে রাহুল গান্ধী যুব নেতা বলে পরিচিত হলে রাহুল গান্ধী বয়স ৪৮ এর বেশি যার কারণে মাঝে মধ্যেই রাহুল গান্ধীর বিয়ের প্রসঙ্গ তুলে মজা নেন বিজেপি সমর্থকরা। সম্প্রতি নিয়ে এমনি মজা করলে বিজেপি নেত্রী স্বাধ্বী প্রাচী। ইনি বলেন ২০১৯ এ কংগ্রেস সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পায় তাহলেও যেন রাহুলের কপালের একটা বউ জুটে যায়।

সোমবার দিন গোরক্ষপুরের গোরক্ষনাথ মন্দিরে পুজো দিতে গিয়েছিলেন স্বাধ্বী প্রাচী। আর তার পরেই এমন মন্তব্য করেন তিনি। স্বাধ্বী প্রাচী বলেন, শ্রাবণ মাসের প্রথম সোমবার, গোরক্ষনাথের কৃপা পেতে এসেছিলাম সেই সময় রাহুল গান্ধীর জন্য গোরক্ষনাথের কাছে প্রার্থনা করেছি যে যদি কংগ্রেস নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পায় তাহলেও যেন একটা জিবনসঙ্গিনী পেয়ে যায়।

আপনাদের জানিয়ে রাহুল গান্ধী দেশের সবথেকে পুরানো পার্টির সভাপতি হলেও বহুবার ভুলভাল ভাষণের জন্য রাজনৈতিক জগতের মজার পাত্রে পরিণত হয়েছেন তিনি। বিজেপি নেত্রী স্বাধ্বী প্রাচী এর এইরকম মন্তব্যর জন্য ক্ষোপ প্রকাশ করেছেন কংগ্রেসের নেতা নেত্রীরা।

কিছুদিন আগেই রাহুল গান্ধীর প্রধানমন্ত্রী হওয়ার মন্তব্য করে কটাক্ষ করেছিলেন বসপার সুপ্রিমো মায়াবতী। মায়াবতীর এক ঘনিষ্ট বলেছিলেন, রাহুল গান্ধীর মা বিদেশিনী। বাবার থেকে মায়ের সাথে বেশি মিল রয়েছে রাহুলের তাই প্রধানমন্ত্রী হতে পারবেন না তিনি।

রাহুল গান্ধীর উপর বার বার এইভাবে আক্রমন করছে বাকি রাজনৈতিক দলগুলি যা সামলাতে সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে কংগ্রেস।আসলে রাজনৈতিক মহলের একাংশের দাবি, রাহুল রাজনীতির জন্য যোগ্য নয়, তার উপর আবার কংগ্রেসের মতো পুরানো দল চালানো তার পক্ষে নিয়ন্ত্রণ করা মুশকিল হচ্ছে তাই এমন আক্রমন আসছে অন্যান্য দলগুলি থেকে।