Press "Enter" to skip to content

৯০ বছরের বৃদ্ধাও অসুরক্ষিত বাংলায়, ঘরে ঢুকে ধর্ষণ করল প্রতিবেশী যুবক


জলপাইগুড়িঃ ৯ মাস হোক আর ৯০ বছর, কেউই সুরক্ষিত নয়। সম্প্রতি এমনই এক ঘটনায় ঘটেছে জলপাইগুড়িতে। সেখানে এক ৯০ বছরের াকে বাড়িতে ঢুকে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশী যুবকের বিরুদ্ধে। জলপাইগুড়ির বোয়ালমারীর সন্ন্যাসী পাড়া এলাকায় এই অমানবিক ঘটনায় গোটা এলাকার মানুষ ক্ষুব্ধ। তাঁরা ের দ্বারস্থ হয়ে অভিযুক্ত যুবকের কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছে।

প্রাপ্ত অনুযায়ী, কয়েকবছর আগে ওই বৃদ্ধা মহিলার স্বামী মারা যান। এরপর থেকেই ছোট ছেলের সঙ্গে বাড়িতে থাকতেন ওই ৯০ বছরের মহিলা। বিগত কয়েকমাস ধরে অসুস্থতার কারণে শয্যাশায়ী তিনি। আর সেই শয্যাশায়ী মহিলাই যৌন লালসার শিকার হলেন।

নির্যাতিতা বৃদ্ধার ছেলে জানান, শুক্রবার রাত প্রায় একটা নাগাদ মায়ের চিৎকার শুনে সে পাশের ঘর থেকে বেরিয়ে আসে। এরপর দেখে মায়ের ঘরের দরজা খোলা। সে দরজা দিয়ে দেখে মশারির নীচে এক যুবক রয়েছে। এরপর অভিযুক্ত প্রতিবেশী যুবক বিপ্লব সরকারকে সে টেনে হিঁচড়ে সেখান থেকে বের করে। তাঁকে মারধর করায় সেখান থেকে পালিয়ে যায় অভিযুক্ত। সকাল হতেই গ্ের মানুষকে গোটা ঘটনা জানান নির্যাতিতার ছেলে।

এরপর গ্রামে সালিশি সভা ডেকে অভিযুক্তের বিচার হয়। সেখানে অভিযুক্ত যুবক স্বীকার করে যে সে রাতে ওই মহিলার ঘরে ঢুকেছিল। তবে সে ধর্ষণ করেছে বা ধর্ষণের চেষ্টা করেছে সেটা অস্বীকার করে। এরপর সালিশি সভায় উপস্থিত তাঁকে মারধর করে।

নির্যাতিতার ছেলে বাড়িতে গিয়ে দেখেন যে তাঁর মায়ের বিছানায় কিছু দাগ রয়েছে। সেগুলি দেখে তাঁর সন্দেহ আরও গাঢ় হয়। এরপর সে পুলিশে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। নির্যাতিতার ছেলে জানান, বিছানার চাদরে এই দাগই স্পষ্ট করছে যে ওই যুবক আমার মাকে ধর্ষণ করেছে।

শনিবার সকালে থানায় গিয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করে নির্যাতিতার ছেলে। অন্যদিকে, পুলিশে অভিযোগ জমা পড়ার আগে থেকেই পলাতক অভিযুক্ত। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ তদন্তে নেমেছে।