Press "Enter" to skip to content

দুর্দান্ত প্রকল্প মোদী সরকারের! এবার হাইওয়েতে ল্যান্ডিং করতে পারবে বিমান।

দুর্ঘটনার আভাস পেয়েও বহুবার যাত্রীদের নিয়ে নিরুপায় হয়ে পড়ে চালকেরা।যান্ত্রিক গোলযোগ কিংবা কন্ট্রল রুমের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়া এমন নরক পরিস্থিতিতেই জরুরি অবতরণ আবশ্যক হয়ে পড়ে।কিন্তু সেসময় নিরুপায় হয়ে যায় চালকেরা।কারণ অবতরণের জন্য প্রয়োজন বন্দরের। তাই নিকটবর্তী বিমানবন্দরে যেতে হয় সাহায্যের জন্য ,যদিও সাহায্য পাওয়া নির্ভর করে পুরোপুরি এয়ার ট্রাফিক এর ওপর।এই ঢিলেমির জেরে দুর্ঘটনা ঘটে এবং প্রাণ যায় বহুযাত্রীর । এই পরিস্থিতি রুখতে উদ্যোগ নিলো কেন্দ্র সরকার।প্রাথমিকভাবে ঠিক করা হয়েছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ১১টি রাজ্যে হাইওয়েতে এয়ারস্ট্রিপ তৈরি করা হবে।কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহন প্রতিমন্ত্রী মনসুক মাণ্ডব্য জানান শুধু দুর্ঘটনায় নয় , প্রাকৃতিক দুর্যোগেও ত্রাণ পৌঁছাতে সাহায্য হবে।

প্রতিমন্ত্রীর মতানুযায়ী বন্যা,ভূমিকম্প,সাইক্লোন ইত্যাদি প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় বায়ুপথে ত্রাণ পৌঁছানোই শ্রেয়।এই এয়ারস্ট্রিপ আপাতত 11 টি তৈরি করা হচ্ছে যার মধ্যে প্রথমটি গুজরাটের দ্বারকার দেবভূমিতে ১৫১ নং হাইওয়েতে। এই প্রকল্পটির খরচ হিসাব এ ৮৩ কোটি ৬৬ লক্ষ টাকা ধার্য করা হয়েছে।পরবর্তীকালে পশ্চিমবঙ্গে, রাজস্থান, অন্ধ্রপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, ওড়িশা এবং জম্মু কাশ্মীরে এই ধরনের এয়ারস্ট্রিপ তৈরির পরিকল্পনা রয়েছে। এর জন্য ১৩ টি বেঁছে নেওয়া হয়েছে।

৫-৬ কিলোমিতার লম্বা ও ৬০ কিলোমিটার চওড়া কংক্রিটের রাস্তা থাকবে এই এয়ারস্ট্রিপে।এই রাস্তায় একসাথে ৪ টি বিমান রাখা যাবে একইসাথে রাস্তায় কোনোরকম গাছপালা অথবা বৈদ্যুতিক খুঁটি থাকবে না ,বসানো হবে এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল টাওয়ার। আগের বছর যমুনা এক্সপ্রেসওয়েতেও ভারত বায়ুসেনার যুদ্ধবিমান মিগ-২৯ সফলভাবে অবতরণ করে।

সমস্তরকম পরিস্থিতিতে দেশের জনগণকে সুরক্ষিত রাখতে এই বড়ো পরিকল্পনা নিয়েছে মোদী সরকার। যে কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ দেশের জনগণকে নিরপত্তাব্যাবস্থা আরো বাড়িয়ে তুলতে এই এয়ারস্ট্রিপ খুব কার্যকরী হবে বলেই মনে করা হচ্ছে। জানিয়ে দি, ইন্ডিয়ান এয়ার ফোর্স এবং হাইওয়ে অথরিটিকে এই বিষয়ে সার্ভে করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল।