Press "Enter" to skip to content

৪০ জন পাক হিন্দু নাগরিককে ভারতীয় নাগরিকত্ব দিলো মোদী সরকার

পুলওয়ামায় পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন জৈশ-এ-মহম্মদ এর দ্বারা করা জঙ্গি হামলার পর দুদেশে সম্পর্ক আগের থেকে অনেক খারাপ হয়েছিল। এমনকি পাকিস্তান থেকে ভারতে পরমাণু হামলার হুমকিও দেওয়া হচ্ছিল। তারপর ভারত পাকিস্তানে ঢুকে জঙ্গি ঘাঁটি উড়িয়ে দিয়ে আসার পর, দুদেশের মধ্যে উত্তেজনা আরও বেড়ে যায়।

আর এর মধ্যে ৪০ নাগরিককে ভারতের নাগরিকত্ব দিলো । কেন্দ্রের এর আগেই ঘোষণা করেছিল যে, বিদেশ থেকে অত্যাচারিত হয়ে আসা সব হিন্দুদের ভারতের নাগরিকত্ব দিয়ে তাঁদের পুনর্বাসনের দ্বায়িত্ব নেবে। সেটা বাংলাদেশ হোক আর পাকিস্তান।

আর সি মতেই এই ৪০ জন পাক নাগরিককে ভারতের নাগরিকত্ব দিলো সরকার। মহারাষ্ট্রের জেলায় বৃহস্পতিবার ৪৫ জন বিদেশী নাগিরককে ভারতের নাগরিকত্ব দেয় জেলা প্রশাসন। তাঁদের মধ্যে বেশরভাগই পাকিস্তান থেকে আসা নাগরিক ছিল বলে জানায় প্রশাসন।

বাকিরা বাংলাদেশ আর আফগানিস্তান থেকে এসেছিল বলে জানায় প্রশাসন। ভারতের নাগরকিত্বের আবেদনকারীদের মধ্যে অনেকেই ৪০ বছর আগে ভারতে এসেছিলেন। তা স্বত্বেও তাঁদের ছিলনা। ১৯৫৫ সালে নাগরিকত্ব আইন সংশোধনের পর জেলা সংগ্রাহককে সংখ্যালঘুদের আবেদনকারীদের নাগরিকত্ব প্রদানের ক্ষমতা দেওয়া হয়। আর ওই সংশোধন অনুযায়ী মোট ৪৫ জনকে দেওয়া হয়।

মায়ানমার থেকে রোহিঙ্গা হোক আর বাংলাদেশ থেকে আসা অবৈধ অনুপ্রবেশকারী মুসলিম। তাঁদের জন্য প্রাক্তন কংগ্রেস সরকার এবং পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল আগাগোড়াই দরদ দেখিয়ে এসেছে। কিন্তু বাংলাদেশ আর পাকিস্তানের মাটিতে থাকা অত্যাচারিত হিন্দুদের কথা তাঁরা কোনদিনও ভাবেনি।

কিন্তু কেন্দ্রে মোদী সরকার আসার পর থেকেই বিদেশের মাটিতে অত্যাচারিত হিন্দুদের নিয়ে ভাবনা শুরু হয়। আর তাঁদের এদেশের নাগরিকত্ব দেওয়া শুরু হয়।

8 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.