Press "Enter" to skip to content

পশ্চিমবঙ্গের এই জেলায় অন্য পার্টি ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিলেন ৫০০ এরও বেশি কার্যকর্তা।

দেশের সব জয়গাতে বিজেপি ভালো ফল করেই চলেছে। এবার পশ্চিমবঙ্গেও পদ্ম ফোটার লক্ষণ দেখা দিতে শুরু করে দিয়েছে। মনে করা হচ্ছে পদ্ম নিজের শিকড় দিন দিন মজবুত করছে পশ্চিমবঙ্গের মাটিতে। এমনকি এবার পঞ্চায়েত ভোটে শাসক দলের উপদ্রপ ও গুন্ডাগিরি সত্ত্বেও এ রাজ্যেও বিজেপি যথেষ্ট ভালো ফল করেছে। অনেক গুলি আসন তারা নিজেদের দখলে নিয়েছে। পঞ্চায়েত ভোটে বিশেষ করে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে নিজেদের শিকড় মজবুত করেছে রাজ্য বিজেপি। একপ্রকার তৃনমূল কংগ্রেসের থেকে বিজেপি বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েত ছিনিয়ে নিয়েছে। তারপর থেকেই ক্রমাগত বিজেপিতে যোগদানের চাহিদা বেড়ে গিয়েছে জলপাইগুড়ি জেলার সদর ব্লকের দুটি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায়। সেখানে এখন প্রায় প্রতিদিনই কেউ না কেউ বিজেপিতে যোগদান করছেন। সেই সব কিছু ছাড়িয়ে গতকাল প্রায় ৫০০ জন মানুষ বিজেপিতে যোগ দিলেন যারা প্রত্যেকেই আগে অন্য কোনো না কোনো রাজনৈতিক দলের সক্রিয় সদস্য ছিলেন।

খারিজা বেরুবাড়ি ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েত আর নগর বেরুবাড়ি এই দুটি এলাকা জলপাইগুড়ি জেলার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী অঞ্চলে অবস্থিত। এই দুটি পঞ্চায়েতই গতবার তৃনমূল দখল করেছিল। কিন্তু এবার পঞ্চায়েত ভোটের ফল প্রকাশের পর জানা যায় যে এখানে তৃনমূলকে হারিয়ে বিজেপি দখল করে নেই এই দুটি পঞ্চায়েত। এরপর সেখানে গত কাল  একটি সভা করা হয়েছিল বিজেপি পার্টির তরফ থেকে।

শ্যামপ্রসাদ যিনি জলপাইগুড়ি জেলা যুবমোর্চার সভাপতি, দলের উত্তরবঙ্গের সহ আহ্বায়ক দীপেন প্রামাণিক, শঙ্কর রায় সহ দলের অন্য প্রমুখ নেতারা উপস্থিত ছিলেন বিজেপির এই সভায় যেটা অনুষ্ঠিত হল দক্ষিণ বেরুবাড়ির গৌরাঙ্গ বাজার এলাকায়। সেই সভায় উপস্থিত হয়ে জেলা যুবমোর্চার সভাপতি শ্যামপ্রসাদ বলেন যে, এই সীমান্ত এলাকাভুক্ত দুটি পঞ্চায়েত আমদের দখলে দেওয়ার জন্য এখানকার সাধারণ মানুষ কে ধন্যবাদ জানায়।

এখন বিজেপির ভালো কাজ দেখে অনেক বেশি পরিমানে মানুষ আমাদের দলে যোগদান করছেন। বিভিন্ন রাজনৈতিক দল থেকে দিকে দিকে মানুষ এখন আমাদের সাথে হাত মিলিয়ে কাজ করার ইচ্ছাপ্রকাশ করছেন। তাই আজকে প্রায় ৫০০ এর বেশি মানুষ আমাদের দলে যোগদান করলেন তারা সকলেই অন্য দল থেকে আমাদের দলে এসেছেন। তাই এখন আমাদের সংগঠক এখানে আরও অনেক বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠেছে।

#অগ্নিপুত্র