Press "Enter" to skip to content

আবার বাংলায় মুকুলের হাত ধরে তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠনে লাগল ভাঙ্গন ! তৃণমূল ছেড়ে অসংখ্য শ্রমিক যোগ দিল বিজেপিতে

মুকুল রায় যিনি কিছু মাস আগে তৃনমূলের বিভিন্ন অসামাজিক কাজকর্ম ও গুণ্ডামি সহ্য করতে না পেরে তৃনমূল ত্যাগ করে বিজেপিতে যোগদান করেন। তারপর থেকেই বাংলার রাজনীতিতে চানক্য নামে পরিচিত মুকুল বাবু এই মুহুত্তে হয়ে উঠেছেন তৃনমূলের সবথেকে বড়ো ভয়। এখন খবরের কাগজে একটু চোখ রাখলেই দেখা যায় যে, প্রায় দিনই রাজ্যের কোথাও না কোথাও শাসক দল তৃনমূল কংগ্রেসে ভাঙন ধরিয়ে অনেক প্রভাবশালী নেতাকর্মীদের বিজেপিতে টেনে নিচ্ছেন মুকুল রায়। এবারও তার ব্যাতিক্রম হল না এবার আবার একবার তৃনমূলের সংগঠনে থাবা বসালেন মুকুল বাবু। এবার তিনি ভাঙন ধরালেন তৃনমূল কংগ্রেসের শ্রমিক সংগঠনে।

এবার মুকুল বাবুর হাত ধরে তৃনমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করলেন ৬০০ জন কর্মী যারা প্রত্যেকেই শহরের নামি শপিংমলের শ্রমিক সংগঠনের সদস্য ছিলেন। এইদিন শিয়ালদহের একটি নামি শপিং মলের সামনে মুকুল রায় মহাশয় সভা করেন। সেখানে তিনি দাবি করেন যে, রাজ্যের শাসক দলের শ্রমিক সংগঠন গুলি থেকে তাদের সদস্যরা বেরিয়ে আসতে চাইছেন। তাই তারা এখন তৃনমূল ছেড়ে তৃনমূলের বিকল্প হিসাবে বিজেপিকে বেছে নিচ্ছেন। এইদিনের এই সভায় মুকুল বাবু তৃনমূল ত্যাগী সমস্ত শ্রমিকদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন।

রাবিবারে সাংবাদিকদের সামনে মুকুল বাবু আরও বলেন। তিনি বলেন যে, এইতো সবে শুরু করলাম। এরপর দেখুন কি হয়। এখনতো এই শপিংমলের মূল ব্রাঞ্চের ৬০০ জন বিজেপিতে যোগদান করলেন। এরপর শপিংমলের সমস্ত শাখাতে ভাঙন ধরাবো। ধীরে ধীরে সমস্ত শ্রমিক শাসক দল ছেড়ে বিজেপিতে চলে আসবে। এই দিন বিজেপি নেতা মুকুল রায় হুঁশিয়ারির শুরে শাসক দলের শ্রমিক সংগঠনের নেতাদের বলেন যে, শুধুমাত্র নিজেদের স্বার্থের কথা না ভেবে এবার শ্রমিকদের কথাও একটু ভাবুন। নাহলে দেখবেন রাজ্যজুড়ে শাসক দলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষনা করবেন শ্রমিক সংগঠন গুলি। তখন পুলিশ দিয়ে লাঠিচার্জ করিয়েও শ্রমিকদের আটকাতে পারবেন না। তাই এখনও সময় আছে রাজ্যের কথা ভাবুন শ্রমিকদের কথা ভাবুন।
#অগ্নিপুত্র