Press "Enter" to skip to content

অগ্নি-৪, শক্তিশালী মিসাইলের পরীক্ষণ সম্পন্ন করলো ভারত! পাকিস্থান ও চীন পর্যন্ত পৌঁছে গেল ভারতের হাত।

এক সময়ের অখন্ড হিন্দু রাষ্ট্র ভারত, সোনার পাখি নামে পুরো বিশ্বের কাছে পরিচিত ছিল। বিশ্বের সবথেকে শক্তিশালী, ঐতিহ্যশালী, চেতনাশীল ও জাগরুক সমাজ ছিল ভারত। কিন্তু লাগাতার পরিবর্তনশীল রাজনীতি ও একতার অভাবে ভারত বহু পিছিয়ে পড়েছিল। তবে এখন একবার ভারত বিশ্বকে নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষমতা অর্জন করার পথে চলা আরম্ভ করে দিয়েছে। ভারত পুনরায় তার গৌরবশালী অধ্যায় ফিরিয়ে আনার পথে নেমে পড়েছে। যার আরম্ভ দেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হাত ধরে শুরু হয়েছে। আগত দশকে ভারত যদি বিশ্বের সর্বশক্তিমান দেশ হিসেবে সামনে আসে তাহলে আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই, কারণ ভারত আবারো তার স্বর্ণযুগের দিকে অগ্রসর হতে শুরু করেছে।

বিজ্ঞান থেকে শুরু করে সামরিক সমস্থ দিকেই নিজের দাপট দেখাচ্ছে বর্তমান ভারত। রবিবার দিন ভারত ওড়িশার তটে পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম লম্বা দূরত্বের মারক ক্ষমতা সম্পন্ন ব্যালাস্টিক মিসাইল অগ্নি-৪ এর সফল পরীক্ষণ সম্পন্ন করেছে। উল্লেখ্য, এই মিসাইল ৪০০০ কিমি পর্যন্ত লক্ষ ভেদ করতে সক্ষম। সেনা এই পরীক্ষণ প্রায়োগিক পরীক্ষণের রূপে করেছে।

প্রতিরক্ষা সূত্রে খবর, ৪০০০ কিমি স্ট্রাইক রেটের এই মিসাইলের পরীক্ষণ ডক্টর দ্বীপ স্থিত এককার্ড পরীক্ষণ কেন্দ্রের লঞ্চপ্যাড সংখ্যা-৪ এ সকাল ৮.৩৫ এর সময় করা হয়েছে। পরীক্ষণকে ‘ পূর্ন সফল’ আখ্যা দিয়ে এক আধিকারিক বলেন, এই পরীক্ষণের মধ্যে দিয়ে এই মিশনের সমস্থ উদ্দেশ্য প্রাপ্তি করা হয়েছে। উনি বলেন, সমস্থ রাডার, ট্রেকিং সিস্টেম ও রেঞ্জ স্টেশন থেকে মিসাইল উড়ানের উপর নজরদারি রাখা হয়েছিল। মিসাইলের কার্যক্ষমতা থেকে শুরু করে অন্যান বিষয় এক মোবাইল লঞ্চারের মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছিল

অগ্নি-৪ এর এটা ৭ তম পরীক্ষন ছিল। এর আগে ভারতীয় সেনার সামরিক বল কামান এই স্থান থেকে ২ জানুয়ারি ২০১৮ তে এর সফল পরীক্ষণ করেছিল। DRDO এর থেকে পাওয়া খবর অনুযায়ী, এই মিসাইল দেশে তৈরি যা ২০ মিটার লম্বা ১৭ টন ওজন সম্পন্ন শক্তিশালী ও অত্যাধুনিক মিসাইল। গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এই যে, এই মিসাইলের স্ট্রাইক রেট ৪০০০ কিমি হওয়ায় পাকিস্থান ও চীন দুই দেশ পর্যন্ত এই মিসাইলের রেঞ্জ রয়েছে। যার কারণে দুই দেশের মিডিয়া এই মিসাইল ইস্যুতে উৎপাত শুরু করেছে।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.