Press "Enter" to skip to content

“অযোধ্যায় বিশাল সংখ্যায় জমা হচ্ছে হিন্দু, কোর্ট সেনা নামানোর নোটিস দিক নাহলে মন্দির বানিয়ে নেবে হিন্দুরা”: অখিলেশ যাদব।

ের বাবা মুলায়ম সিং যাদব নিজেকে গর্বের সাথে মোল্লা মুলায়ম বলতেন। উনি বাবরি মসজিদের জন্য অগণিত হিন্দুদের হত্যা করিয়ে সরযূ নদীতে ফেলে দিয়েছিলেন। উনারি ছেলে এবং উনার থেকে বেশি নামাজবাদী ও তোষণবাদী। মুলায়ম জাদবকে মোল্লা মুলায়ম বলে ডাকা হলেও উনাকে নামাজবাদী তকমা দেওয়া হতো না। কিন্তু মুলায়ম পুত্র নামাজবাদী তকমাও অর্জন করে নিয়েছেন। তোষণের জন্য আখিলেশ যাদব মসজিদে গিয়ে ইসলামিক কার্যকলাপে এতটাই অংশ নিতেন যে উত্তরপ্রদেশবাসী উনাকে নামাজবাদী তকমা দিয়েছেন। নামাজবাদী অখিলেশ নিয়ে বড়ো মন্তব্য করেছেন। আসলে রাম মন্দির ইস্যুতে হিন্দু সংগঠনগুলি তাদের আক্রোশ প্রকাশ করছে। আর এই কারণে সমস্থ হিন্দুত্ববাদী দল, সাধু, সন্তরা ও বিশ্বহিন্দু পরিষদের সদস্যরা বিশাল সংখ্যায় অযোধ্যায় জমা হতে শুরু করে দিয়েছে।

যা দেখে হিদু বিরোধী কট্টরপন্থী ও তোষণকারী দলগুলি তিলমিলিয়ে উঠেছে। হিন্দুদের বিশাল সংখ্যায় জমা হওয়া দেখে অখিলেশ যাদব আর্মি নামানোর দাবি তুলেছেন। অখিলেশ যাদব বলেছেন, যদি আর্মি নামানো না হয় তবে হিন্দুরা একজোট হয়ে মন্দির বানিয়ে নিতে পারে। অখিলেশ যাদব বলেছেন, হিন্দুরা সংবিধান, আইন কিছুই মানে না। সুপ্রিম কোর্টের উচিত অযোধ্যায় কেন এত বিশাল সংখ্যায় হিন্দু ভিড় জমা হচ্ছে সেদিকে তদন্ত করার নির্দেশ দেওয়া।

হিন্দুরা যাতে জমা হয়ে মন্দির না বানিয়ে দেয় সেই কারণে অখিলেশ যাদব ভারতীয় সেনা নামানোর কথা বলেছেন। জানিয়ে দি, সেনা একটা সলিড ফৌজ যেটা দেশের শত্রুদের জন্য ব্যাবহার করা হয় কিন্তু অখিলেশ যাদব সেই স্থল সেনাকে হিন্দুদের বিরুদ্ধে লাগাতে চাইছে। অখিলেশ যাদব এটা পরিষ্কার করে দিয়েছেন যে এখন উনার সরকার থাকলে হিন্দুদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া হতো।

উত্তরপ্রদেশে যদি আখিলেসের সরকার থাকতো তাহলে হিদুদের বিরুদ্ধে সেনা, তোপ ব্যাবহার করে হিন্দুদের উড়িয়ে দেওয়া হতো। কিন্তু যেহেতু এখন উত্তরপ্রদেশে যোগী আদিত্যনাথের সরকার রয়েছে তাই হিন্দুরা বিনা আশঙ্কায় জড়ো হয়েছে। হিন্দু সংঘঠন গুলি দেশের বাকি হিন্দুদের অযোধ্যায় জমা হওয়ার আমন্ত্রণ জানিয়েছে।