Press "Enter" to skip to content

মোদী এফেক্ট! জঙ্গি উৎপাদন করার জন্য পাকিস্থানের ৩০০ মিলিয়ন ডলার আটকে দিলো আমেরিকা।

কিছু দিন আগেই ের নির্বাচনে জিতে প্রধানমন্ত্রী হন ইমরান খান। তিনি শুধু একজন রাজনৈতিক নেতাই নন ক্রিকেটার হিসাবেও যথেষ্ট সফল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী হওয়ার কিছু দিনের মধ্যেই তিনি বড়ো ধাক্কা খেলেন আমেরিকার কাছে। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সাথে তার দেখা করার কথা তার আগেই এইরকম একটা ধাক্কা খেলেন তিনি। মার্কিন সেনা সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে তারা কোনোরকম অর্থ সাহায্য করবে না পাকিস্তান কে। পাকিস্তান কে যে ৩০০ মিলিয়ন ডলার দেওয়া হত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তরফে সেটা আর দেওয়া হবে না বলে জানানো হয় ওসাশিংটনের তরফে। জানা যাচ্ছে যে, মার্কিন সেনা এই ব্যাপারে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তরফে এই অর্থ না দেওয়ার কারন হিসাবে জানানো হয় যে, পাকিস্তান জঙ্গিদমনে ব্যর্থ। পাকিস্তান কে জানিয়েছিল যে তাদেরকে দুই কিস্তিতে মোট ৮০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার দেওয়া হবে কিন্তু সেই টাকা কাজে লাগাতে হবে জঙ্গিদমনে কাজে। কিন্তু পাকিস্তান সেই কাজে পুরোপুরিভাবে ব্যর্থ হয়েছে বলেই সূত্রে খবর।

এর আগে প্রথম কিস্তির ৫০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার পাকিস্তান কে দেওয়া হয় নি। আর এবার বাকি ৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার হাত ছাড়া হতে চলেছে পাকিস্তানের। এই সমস্ত অর্থ অন্য খাতে ব্যাবহার করা হবে বলে জানানো হয়েছে অমেরিকার তরফে। আফগানিস্তানে এবং আমেরিকাতে বহু প্রাণঘাতী হামলার সঙ্গে যুক্ত রয়েছে হাক্কানি নেটওর্য়াক আর এই সংস্থাকে মদত জোগান দেয় পাকিস্তান। এছাড়াও তালিবান ও লস্কর-ই- তইবা সহ বিভিন্ন গোষ্ঠীকে নানান ভাবে সাহায্যদান করে পাকিস্তান।

আর পাকিস্তানের এই সব কাজে বেশ ক্ষুব্ধ মার্কিন প্রশাসন। বিশেষ সূত্রে খবর, মার্কিন প্রতিরক্ষাসচিব জিম ম্যাটিস এর অনুমিত না মেলায় এর আগের ৫০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার দেওয়া হয় নি পাকিস্তান কে। কিন্তু এবার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মার্কিন সেনা। তাদের কথাতেই আটকে গিয়েছে পাকিস্তানের জন্য বরাদ্দ ৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। এবার দেখার বিষয় এটাই যে এই ব্যাপারে ট্রাম্প প্রশাসন কি সিদ্ধান্ত নেন। তারা যদি মার্কিন সেনার সাথে একমত হয় তাহলে ৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার হাতছাড়া হবে পাকিস্তানের।

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আমেরিকা সহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশগুলি অনেক অভিযোগ করেন যে পাকিস্তান মদত করছেন জঙ্গি গোষ্ঠী গুলিকে। আর সেই অভিযোগের উপর ভিত্তি করেই পাকিস্তান কে সব ধরনের অনুদান কমিয়ে দেয় আমেরিকা। আর এইবার এই বড়ো সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলল আমেরিকা।জানিয়ে দি, ের প্রধানমন্ত্রী বহুবার আন্তর্জাতিক সম্মেলনে আতঙ্কবাদীদের প্রতি দেশগুলি সক্রিয় হওয়ার কথা তুলেছেন। আর যেহেতু ের মতো উদার ও সহনশীল দেশ এই ইস্যুকে বার বার বিশ্বস্তরে তুলেছে তাই এর সমাধান করতে নেমে পড়েছে আমেরিকা সহ ইউরোপের দেশগুলি।

#অগ্নিপুত্র