Press "Enter" to skip to content

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জয়লাভ খুশি হননি আমির খান! আবার কি দেশকে অসহিষ্ণু মনে হচ্ছে আমিরের?

আমির খান (Amir Khan) কেন নরেন্দ্র মোদীকে (Narendra ) শুভেচ্ছা জানাননি সেই নিয়ে দেশে নতুন বিতর্ক তৈরি হয়েছে। ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে আরো একবার জয়লাভ করে এবং দেশের ক্ষমতায় আসীন হয়। লোকসভা নির্বাচন জেতার সাথে সাথে নরেন্দ্র মোদী দ্বিতীয়বার দেশের প্রধানমন্ত্রী পদে বসেন। নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রী বসে বসলে দেশ ের বড় বড় নেতা, সেলিব্রেটিরা উনাকে টুইট করে জানান। দেশের সেলেব্রেটিদের মধ্যে লতা মঙ্গেশকর, অক্ষয় কুমার, রজনীকান্ত সহ প্রায় সকলকে অভিনন্দন জানান। কিন্তু লোকজন তখন অবাক হলেন যখন আমির খান  নরেন্দ্র মোদীকে অভিনন্দ জানালেন না।

আমির খান কেন নরেন্দ্র মোদীকে অভিনন্দন জানায়নি যে নিয়ে এখন নতুন বিতর্ক তৈরি হয়েছে। সকলে যখন নরেন্দ্র মোদীর জয় নিয়ে টুইট করতে ব্যস্ত ছিল তখন আমির শারুখ দুজনেই মুম্বাইতে ছিলেন। কিন্তু কেউই দেশের এত বড় ও চর্চিত বিষয় নিয়ে কথা বলেননি। অবশ্য পরে খান (Shah Rukh Khan) নরেন্দ্র মোদীকে অভিনন্দন জানিয়েছিলেন। তবে অনেকের দাবি, শাহরুখ খান, আমির খান নরেন্দ্র মোদীর জয়লাভে খুশি হননি। অবশ্য এমন দাবি উঠা স্বাভাবিক কারণ বলিউডে ছোট থেকে বড় প্রায় সব স্টার নরেন্দ্র মোদীকে অভিনন্দন জানিয়েছিলেন। অন্যদিকে আমির খান একেবারে নিশ্চুপ ছিলাম

এমনকি আমেরিকায় থেকে ঋষি কার্পুরও নরেন্দ্র মোদীকে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য শুভেচ্ছা বার্তা দেন। কিন্তু ভারতে থেকেও আমির খান  কেন নরেন্দ্র মোদীকে অভিনন্দন বা শুভেচ্ছা জানালেন না সেই নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু হয়েছে। জানিয়ে দি, আগে থেকেই এই দুই খানের সাথে রাইট উইংয়ের লোকেদের একটু সংঘর্ষ চলে আসছে। আমির খানের ভারতকে অসহিষ্ণু বলা নিয়ে রাইট উইংয়ের লোকজন উনাকে ব্যাপকভাবে ট্রোল করেছিল। প্রায় একই অবস্থা শাহরুখ খানের, রাইট উইংয়ের লোকজন শারুখ খানকেও খুব একটা পছন্দ করেন না।

ি নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গী, অভিনেতা শাহরুখ খানকে এন্টি ন্যাশনাল পর্যন্ত বলে দিয়েছিলেন। তাই এখন শারুখ ও আমির খানের দ্বারা প্রধানমন্ত্রী মোদীকে শুভেচ্ছা না জানানোকে একই চশমা দিয়ে দেখা হচ্ছে। এর আগে ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী যখন মুম্বাইতে সকল অভিনেতা-অভিনেত্রীদের আমন্ত্রণ করেছিলেন তখন বলিউডের খানরা আমন্ত্রণ প্রত্যাখান করেছিলেন। জানিয়ে দি, ইজরায়েল ভারতের সবথেকে কাছের বন্ধু কিন্তু ইসলামিক দেশগুলির সাথে ইজরায়েলের দারুন শত্রুতা রয়েছে। ইসলামিক দেশের সাথে শত্রুতা থাকার জন্যেই নাকি বলিউডের খানরা আমন্ত্রণ প্রত্যাখান করেছিল বলে দাবি উঠেছিল।