Press "Enter" to skip to content

লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে ২২টি আসন জয়ের লক্ষ রেখে এই দুর্দান্ত নীতি প্রয়োগ করতে চলেছেন অমিত শাহ।

বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি এবারের লোকসভা ভোটে বাংলায় জয় ছাড়া কিছুই ভাবছেন না। তাই এবার অমিত জি বাংলায় তার দলের রাশ নিজের হাতেই নিচ্ছেন। তিনি লোকসভা নির্বাচনের আগে দলের রাশ পুরোপুরি নিজের দখলেই রাখছেন। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জি একটি টিম সাজাচ্ছেন যেখানে তাদের কাজ হবে লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যের ৪২ টি কেন্দ্রে দলের প্রচার থেকে শুরু করে সমস্তরকম কাজকর্মের উপর নজরদারি রাখা। ৩০ জন কর্মী নিয়ে একটা করে টিম তৈরি করছেন, এই টিম গুলি থাকবে প্রতিটি লোকসভা কেন্দ্রে। সেই টিম গুলিতে কাদের কাদের রাখা হবে সেটা ঠিক করা হবে কেন্দ্রীয় কমিটির সাথে আলোচনা করে। জানা গিয়েছে যে, ভিন্ন রাজ্য থেকে অনেকজন কর্মী কে নিয়োগ করা সেই সমস্ত টিমে, তারা প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত সমর্থক বলেই শোনা যাচ্ছে। শুক্রবার কলকাতায় দলের রাজ্য কর্মসমিতির একটি বৈঠক হয়। সেই বৈঠকের প্রথম দিনে এই বিষয়টি জানিয়ে দেওয়া হয়।

সেই সাথে আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানানো হয়। বৈঠকে বলা হয় যে আর.এস.এস এর তরফে প্রতি ২ টি করে লোকসভা কেন্দ্রে ১ জন করে কার্যকর্তা নিয়োগ করা হবে। তাঁরা বিজেপির সাথে সমন্বয় করে কাজ করবেন, সেই সাথে লোকসভায় প্রচারে বিজেপির সাথে সমান ভাবে কাজ করবেন তারা। বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের তরফে বিভিন্ন জেলার জেলা সভাপতি ও পর্যবেক্ষকদের এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে শুক্রবারের বৈঠকে।
অমিত শাহ জি ২২ টি আসনের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করে দিয়েছেন আগামী লোকসভা নির্বাচনে থেকে। তিনি জানিয়ে দিয়েছেন যে, তিনি প্রায়ই কেন্দ্র থেকে লোক পাঠাবেন এই রাজ্য, সেই সাথে প্রচারের জোর বাড়ানোর জন্য তিনি নিজেও ঘনঘন আসবেন বলে জানিয়েছে। এর থেকে এটা স্পষ্ট যে, মোদী – অমিত জুটি এই রাজ্যের উপর বাড়তি নজর দিচ্ছেন।

তাই অমিত জি এবার বাংলার রাশ নিজের হাতে নিয়ে দিল্লি সহ রাজ্যের অন্যান্য জেলা থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্মী নিয়োগ করবেন বাংলায়। তাদের কাজ হবে ভোটের আগে বাংলার সমস্ত কিছু ঠিকঠাক ভাবে হচ্ছে কি না সেই দিকে নজর রাখা। রাজ্যের বিভিন্ন জেলার জেলা সভাপতি ও পর্যবেক্ষকরা তাদের কাজ ঠিকমত করছে কি না সেই সমস্ত দিক খতিয়ে দেখবেন সেই টিম। সেই টিম অমিত শাহকে রিপোর্ট দেবে এই রাজ্যের দলের প্রচারের অগ্রগতি ঠিকঠাক হচ্ছে কি না। সেই টিমে নিয়োগ করা হতে পারে এই রাজ্যের আর.এস.এস কর্মীদেরও। বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, সুব্রত চট্টোপাধ্যায়, রাহুল সিনহা -সহ শীর্ষ নেতারা সেই দিনের কর্মসমিতির বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

রাজ্যের পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় সেই বৈঠকে বক্তব্য রাখতে গিয়ে কড়া ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন যে, দলের রথযাত্রা যে কর্মসূচি ডিসেম্বর মাসে নেওয়া হয়েছে সেটি দারুণরকম সফল করতে হবে। রাজ্য থেকে তিনটি রথ বের করা হবে এই সমস্ত জায়গা গঙ্গাসাগর, তারাপীঠ ও কোচবিহার থেকে। অমিত শাহ থাকবেন কোনও একটি রথযাত্রার উদ্বোধনে। তিনি এই দিন হুসিয়ারের শুরে বলেন যে ডিসেম্বর মাস অবধি দলের প্রত্যেক নেতাকর্মীর পারফরম্যান্স দেখা হবে। যেসমস্ত নেতারা ভালো পারফরম্যান্স করতে পারবেন না তাদের কে অব্যাহতি নিতে হবে নিজের পদ থেকে।এছাড়াও সেই দিনের বৈঠকে আরও ৫০ টি কর্মসূচির তালিকা দেওয়া হয়েছে। সেই সব কর্মসূচির অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ্‌ জি। এর থেকে বোঝায় যাচ্ছে যে, এবার লোকসভা ভোটে এই রাজ্যের সমস্ত রাশ অমিত জি নিজের হাতেই নিয়ে নিয়েছেন।
#অগ্নিপুত্র