Press "Enter" to skip to content

শিবসেনাকে শিক্ষা দিতে নতুন পরিকল্পনা করলো মোদী ও অমিত শাহের জুড়ি।

NDA তে বিজেপির সাথে যুক্ত থাকলেও নিজেদের রাজনৈতিক ফায়দার জন্য বহুবার বিজেপির বিরোধিতায় কথা বলেছে। এমনকি বিরোধীরা যখন বিজেপির বিরুদ্ধে অবিশ্বাস প্রস্তাব এনেছিল তখন বিজেপির সমর্থন করেনি। হ্যাঁ এটা ঠিক যে অবিশ্বাস প্রস্তাবের সমর্থনও করেনি। অর্থাৎ বিজেপির বিরুদ্ধেও যায়নি এত বিজেপিকে সমর্থনও করেনি। কিন্তু বহুবার ভালো কাজের নিন্দা করে বিজেপিকে কাঠগোড়ায় দাঁড় করিয়েছে। বিজেপির কাজের সমালোচনা করার সময় বিজেপি ততটা সক্রিয় না হলেও সাংসদে শিবসেনার সমর্থন না পাওয়ায় সচেতন হয়ে উঠেছে বিজেপি। আর তাই বিজেপি এবার শিবসেনার বিরুদ্ধে এমন রণনীতি তৈরি করছে যা তাদের অবশ করে দেবে।

আপনাদের জানিয়ে রাখি মহারাষ্ট্রে বিজেপি ও শিবসেনার জোট সরকার রয়েছে কিন্তু শিবসেনা যেভাবে বিজেপির উপর প্রতিক্রিয়া দিচ্ছে তাতে বিজেপি সভাপতি নতুন পরিকল্পনা করে ফেলেছেন। বিজেপির চাণক্য বলে পরিচিত শিব সেনার ধোকাবাজিকে জবাব দেওয়ার জন্য মুম্বাইতে বিজেপি কর্মীদের নিয়ে একটা বৈঠক ডেকেছিলেন। এই বৈঠকে উনি বিজেপি কর্মীদের সম্বোধন করার পর বলেন, আমাদেরকে মহারাষ্ট্রে একার শক্তিতে নির্বাচনে জিততে হবে আর এই জন্য এটা খুবই আবশ্যক যে আমাদের কর্মীরা সকলে গ্রাউন্ড লেভেল কাজ করুক।

অমিত শাহ তার পরিকল্পনাকে বাস্তব করার জন্য মুম্বাই এসেছেন। শাহ বলেন আমাদেরকে মুম্বাইয়ের সমস্ত ৪৮ সিটে নির্বাচন লড়তে হবে এবং শুধু লড়াই নয় জিতও নিশ্চিত করতে হবে।আমাদেরকে প্রত্যেক বুথে কমপক্ষে ৫১% ভোট করাতে হবে। এর জন্য আমাদের দলের কার্যকর্তাদের অনেক সজাগ ও সক্রিয় হতে হবে। শাহ বলেন, আমরা যদি সমস্ত কিছু সময়মত করি তাহলে আগমনী লোকসভা নির্বাচনে আমাদের জিতকে কেউ আটকাতে পারবে না।

আর এর ফলস্বরূপ আমাদেরকে অন্য দলের উপর নির্ভরশীল হতে হবে না। আসলে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ মহারাষ্ট্রের নির্বাচনের জন্য ‘একলা চলো রে’ এর রণনীতি তৈরি করছেন। অমিত শাহ বলেন শিবসেনা রাজনৈতিক স্বার্থের জন্য পার্টির উপর চাপ সৃষ্টি করে কিন্তু আমাদের দল কোনোরকম রাজনৈতিক স্বার্থের সমর্থন করে না। শিবসেনা যদি এইভাবে নিজেদের নীতিতে আটকে থাকে তাহলে তাদেরকে পরে ভুগতে হতে পারে।