Press "Enter" to skip to content

একটাও হিন্দু যাবেনা দেশের বাইরে, এবার কেউ রামনবমীতে নিষেধাজ্ঞা জারি করে দেখাকঃ অমিত শাহ

মোদী সরকারের দ্বিতীয় কার্যকালে অমিত শাহ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী হিসেবে প্রথমবার পশ্চিমবঙ্গে আসেন। অমিত শাহ কলকাতায় রাষ্ট্রীয় নাগরিক পঞ্জি (NRC) আর নাগরিকতা সংশোধন আইন ২০১৯ নিয়ে একটি সেমিনার করেন। অমিত শাহ বলেন, পশ্চিমবঙ্গ আর ৩৭০ ধারার মধ্যে একটি বিশেষ সম্বন্ধ আছে, কারণ ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী এই মাটির সন্ত্রান, উনি ‘এক দেশ, এক আইন” এর আওয়াজ তুলেছিলেন। অমিত শাহ আরও বলেন, ‘এই বাংলার সুপুত্র শ্যামা প্রসাদ মুখার্জী আওয়াজ তুলেছিলেন, এক দেশে দুটি সংবিধান, দুটি প্রধান চলবে না। ভারত মায়ের এই মহান সুপুত্রকে গ্রেফতার করা হয়েছিল, আর এরপর ওনার রহস্যময় ভাবে মৃত্যু হয়।”

উনি আরও বলেন, ‘শ্যামা প্রসাদ মহাশয়ের মৃত্যুর পর কংগ্রেস ভেবেছিল যে, এবার সব মামলা সমাপ্ত হয়ে যাবে। কিন্তু ওরা জানেনা যে, আমরা বিজেপি, আমরা কোন একটা জিনিষ ধরলে, সেটাকে ছারিনা। আপনারা এবার বিজেপির সরকার গড়েছেন, আর আমরা এক ঝটকায় কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে দিয়েছি।”  এনআরসি নিয়ে বলার সময় অমিত শাহ বলেন, ‘আমি আপনাদের স্পষ্ট জানিয়ে দিতে চাই যে, আমরা এনআরসি লাগু করবই। আর এরপর ভারতে একটাও অনুপ্রবেশকারীকে থাকতে দেবনা। ওদের বেছে বেছে ভারত থেকে বের করব।” অমিত শাহ এও বলেন যে, এই দেশ থেকে হিন্দু, বৌদ্ধ, শিখ, জৈন আর খ্রিষ্টান শরণার্থীদের কেউ বের করতে পারবেনা।

একদিকে অমিত শাহ বারবার বলছেন যে, এই রাজ্যে এনআরসি লাগু করবেন। আরেকদিকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী এই রাজ্যে এনআরসি লাগু না করার সংকল্প নিয়েছেন। রাজ্য বিজেপির নেতারা বলেন, এই অনুষ্ঠানে অমিত শাহ তৃণমূল কংগ্রেসের মিথ্যে অভিযোগ আর এনআরসি নিয়ে গুজব ছড়ানোর বিরুদ্ধে মোক্ষম জবাব দিয়েছেন।

রাজ্য বিজেপির এক নেতা বলেন, তৃণমূল এই রাজ্যে ইচ্ছে করে এনআরসি নিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করার চেষ্টা করছে। উনি এও বলেন যে, এই রাজ্য কেন গোটা দেশ থেকে কোন হিন্দুকে তাড়ানো হবেনা। এমনকি বাংলাদেশ আর পাকিস্তান থেকে আগত হিন্দুদের এই দেশে পাকাপাকি ভাবে বসবাসের ব্যাবস্থা করে দেবে বিজেপি সরকার।

অমিত শাহ বলেন, আমরা কোন শরণার্থীকে যেতে দেবনা, আর কোন অনুপ্রবেশকারীকে থাকতে দেবনা। উনি মমতা ব্যানার্জীকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, আমি বাংলায় দুর্গাপূজায় অংশ নিতে এসেছি, কারোর মধ্যে ক্ষমতা নেই যে, দুর্গা পূজা আটকায়। এখন আর আগের মতো পরিস্থিতি নেই। উনি বলেন, বিজেপিকে ১৮ টা আসন দেওয়ার জন্যই আজ ধীরে ধীরে বাংলার পরিস্থিতি বদলাচ্ছে। আজ কারোর ক্ষমতা নেই যে, বসন্ত পঞ্চমী, রামনবমী আর শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমীর উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

you're currently offline