Press "Enter" to skip to content

১৫ আগস্ট লালচকে পতাকা উত্তোলন করবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ! ভয়ে লুকিয়ে পড়েছে কট্টরপন্থী দেশদ্রোহীরা।

মেহবুবা মুফতি ও উমর আব্দুল্লাহ সমেত দেশের সমস্ত বিশ্বাসঘাতক বা কট্টরপন্থীরা  এদেশে থেকে পাকিস্থানের হয়ে কথা বলে ও ভারতের বিরোধী মন্তব্য করে। ১৫ আগস্ট স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এদের আরোটি জোরে চড় মারতে চলেছেন। খবর অনুযায়ী ১৫ আগস্ট শ্রীনগরের লালচকে স্বয়ং গৃহমন্ত্রী অমিত শাহ পতাকা তুলবেন। নরেন্দ্র মোদি লাল কেল্লায় পতাকা তুলবেন।সেখানে দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ শ্রীনগর গিয়ে লালচকে পতাকা তুলবে। লালচৌক হলো সেই স্থান যেখানে এক সময় নরেন্দ্র মোদি বিজেপির বরিষ্ঠ নেতা মুরলিমনোহর জোশীর সাথে গিয়ে আতঙ্কবাদীদের চ্যালেঞ্জ জানিয়ে পতাকা তুলেছিলেন।

শ্রীনগরের লাল চৌকে ১৫ আগস্ট অমিত শাহ দ্বারা পতাকা উত্তোলন একটি ঐতিহাসিক ঘটনা হবে। কারণ এই অনুষ্ঠান ধারা 370 সমাপ্ত হওয়ার পরে হবে।
এই ধারার কারণে জম্মু কাশ্মীর কিছু বিশেষ অধিকার পেত যার  ফলে অন্য রাজ্যের লোকেরা সেখানে জমি কিনতে পারত না ও সব হিন্দুদের তাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছিল, এর ফলে সন্ত্রাসবাদী ও কট্টরপন্থীদের উৎপাত চরমে ছিল। একই সাথে জম্মু-কাশ্মীরের আলাদা পতাকাও ছিল। আর এই বিশেষ কিছু অধিকারের ফলেই ভারতীয় সেনারা সন্ত্রাসবাদের দমন করতে পারত না। কিন্তু এখন এই ধারা কে মোদি সরকার সমাপ্ত করে দিয়েছে এবং জম্মু কাশ্মীর কে ভারতের অন্য রাজ্যের মতোই হবে।

জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ দুটি কেন্দ্র শাসিত প্রদেশে পরিণত হয়েছে। এখন পুরো ভারতে একটা জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে।
সরকার মেহবুবা মুফতির মতো নেতাদের নজর বন্ধি করা রেখেছে।   বিভিন্ন  কট্টরপন্থীরা যারা এই ধারা তুলে দেওয়া নিয়ে হুমকি দিত যে যদি 370 কে সরিয়ে দেওয়া হয় তবে কাশ্মীরে পতাকা তোলার জন্য কেউ বেঁচে থাকবে না, সবাইকে জ্বালিয়ে ছাই করে দেব ইত্যাদি ইত্যাদি তাদের মুখে মোদি সরকার একটি বড় থাপড় মেরেছে।

এই সব কট্টরপন্থীদের বুঝে যাওয়া উচিত তাদের এই হুমকিতে ভারত আর থেমে থাকবে না প্রতিটার দ্বিগুন জবাব দেবে ভারতীয় সেনা। তাই বলা যেতে পারে যে 370 ধারা সমাপ্ত হওয়ার পর মোদি সরকার ও গৃহমন্ত্রী অমিত শাহ ১৫ই আগস্ট লালকেল্লা ও লাল চৌকে পতাকা তুলে এই সব কট্টরপন্থী ও পাকিস্থানের মুখে কড়া চড় মারতে চলেছেন।

you're currently offline