Press "Enter" to skip to content

৪৫ জন জওয়ানদের বলিদান হওয়ায় আনন্দ উৎযাপন করলো আলীগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটির ছাত্র! দেশদ্রোহী ছাত্রের বিরুদ্ধে দায়ের করা হলো FIR

দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, দেশের সমস্থকিছুর দায়িত্ব উনার কাঁধের উপরেই থাকে। কিন্তু যদি কোনো জায়গায় আতঙ্কবাদী হামলা হয়, তাহলে আমরা কি আতঙ্কবাদী ও পাকিস্থানের নিন্দা করবো নাকি মোদী মোদী করে প্রধানমন্ত্রীর বিরোধিতা শুরু করবো। দেশের একজন নাগরিক হিসেবে যে কেউ আতঙ্কবাদী ও পাকিস্থানের নিন্দা করবে। কাল ইসলামিক সংগঠন জইশ-মহম্মদ সেনার কনভয়তে বোম ব্লাস্ট করিয়েছে যাতে এখনো পর্যন্ত ৪০ জন সেনা জওয়ান বলিদানি হয়েছেন। কিন্তু কংগ্রেস একবারের জন্যেও আতঙ্কবাদী, পাকিস্থান বা ইসলামিক সংগঠনের নিন্দা করেনি। শুধু মাত্র নিজেদের রাজনীতি চমকানোর জন্য মোদী মোদী চিৎকার করে দোষারোপ শুরু করেছে।

জানিয়ে দি, ঘটনা নিয়ে দেশের ভেতরে থাকা কট্টরপন্থী তথা পাকিস্থান প্রেমীরা আনন্দউৎসব শুরু করেছে যা দেশের সেকুলার মিডিয়া জনগণের থেকে লুকিয়ে যাচ্ছে। রাষ্ট্রবাদীদের দেশপ্রেম নিয়ে যে মিডিয়ার জ্বালা ধরে সেই মিডিয়া আজ দেশে ঢুকে থাকা পাকিস্থান প্রেমীদের উৎপাত দেখেও নিশ্চুপ রয়েছে।

আজ দেশের ৪৫ জন জওয়ান ইসলামিক আতঙ্কবাদী সংগঠনের হামলায় শহীদ হয়েছে যার জন্য আলীগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটির কিছু দেশদ্রোহী ছাত্র আনন্দউৎসব শুরু করেছে। উপরে যে ছেলেটির ছবি দেখছেন তার নাম বাসিম বিলাল। আলীগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটিতে পড়া এই ছাত্র পুলবামা হামলায় বলিদান হওয়া নিয়ে আনন্দউৎসব শুরু করেছে। দেশের জওয়ান প্রাণ হারিয়েছে তাতে খুশি ব্যাক্ত করে এবং ইসলামিক জঙ্গি সংগঠনকে সমর্থন করে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট দিয়েছে।

আলীগড় পুলিশের কাছে এই  ছাত্রের নামে FIR দায়ের করা হয়েছে। তবে দেশের সেকুলাররা এই ছেলেটিকে পুলিশের হাতে থেকে বাঁচানোর জন্য অবশ্যই রাস্তায় নামবে এটাও নিশ্চিত। কারন আলীগড় মুসলিম ইউনিভারসিটি জঙ্গিদের শিক্ষার আঁতুরঘর, যখন যোগী সরকার এই ইউনিভার্সিটির ১৬ ছাত্রের বিরুদ্ধে কার্যবাহী শুরু করেছিল তখন সেকুলার মিডিয়া ও সেকুলার জনগণ  হাত ধুয়ে সরকারের বিরোধে নেমে ছিল।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.