“যখনই শুনবেন সংবিধান বিপন্ন, গণতন্ত্র বিপন্ন, তখন বুঝবেন নরেন্দ্র মোদী কোনো চোরকে ধরেছে”: অনুপম খের, বিখ্যাত অভিনেতা।

ভারতে আজকাল ২-৩ টি উক্তি খুবই সাধারণ হয়ে উঠেছে। এই ২-৩ টি উক্তি এখন প্রায় দিন কট্টরপন্থী, সেকুলার নেতা, মিশনারিদের থেকে শোনা যায়। প্রথম উক্তি- দেশের সংবিধান বিপর্যস্ত, দ্বিতীয় উক্তি- গণতন্ত্র শেষ হয়ে যাচ্ছে, তৃতীয় উক্তি- দেশে ইনটোলারেন্স(অসহিষ্ণুতা) বেড়ে গেছে। এই সমস্ত উক্তি আপনি নরেন্দ্র মোদীর শাসনকালে অবশ্যই শুনে থাকবেন। এই সমস্ত ডায়লগ আপনি মোদী বিরোধী সেকুলার নেতা, কট্টরপন্থী ও কিছু অভিনেতাদের(আমির খান ইত্যাদি) মুখে থেকে শুনতে পাবেন।

দেশে কোনোকিছুর বিরুদ্ধে তদন্ত হলে তখন কিছুজনের কাছে হটাৎ করে সংবিধান, গণতন্ত্র, ফেডারেল স্ট্রাকচার ইত্যাদি বিপন্ন হতে শুরু করে দেয়। সম্প্রতি কলকাতায় CBI এর অধিকারীকরা চিটফান্ড কাণ্ডের জন্য জিজ্ঞাসাবাদ করতে পৌঁছালে তাদেরকে আটক করা হয়। একই সাথে দাবি তোলা হয় যে CBI তদন্তের জন্য নাকি ফেডারেল স্ট্রাকচার বিপন্ন হয়ে যাচ্ছে।

কিন্তু CBI এর মতো সাংবিধানিক সংস্থার আধিকারিকদের আটক করার সময় সংবিধান বিপদে পড়েনি, চিটফান্ড কাণ্ডে গরিব মানুষের টাকা লুটে যাওয়ার সময় বা ১৫০ এর বেশি মানুষ আত্মহত্যা করার সময় গণতন্ত্র বিপন্ন হয়নি। সংবিধান, গণতন্ত্র তখনই বিপন্ন হয়ে যায় যখন CBI দুর্নীতির পর্দাফাঁস করার জন্য তদন্ত শুরু করে।

এই ইস্যুতে বলতে গিয়ে অনুপম খের ২টি লাইন টুইট করেছেন যা খুব ভাইরাল হয়ে পড়েছে। অনুপম খের মাত্র ২ লাইনের মাধ্যমে একটা বড় কথা বলে দিয়েছেন যা দেশের রাষ্ট্রবাদী মানুষদের মনকে ছুঁয়ে গেছে। অনুপম খের লিখেছেন-” যখনই আপনারা কানে আওয়াজ আসবে যে সংবিধান বিপন্ন, ফেডারেল স্ট্রাকচার বিপন্ন তখন বুঝবেন দেশের চৌকিদার অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দেশের কোনো না কোনো চোরকে ধরে ফেলেছে।” অনুপম খের মাত্র ২ লাইনের মধ্যে সমস্থকিছু বুঝিয়ে দিয়েছেন বলে মত রাষ্ট্র্বববাদীদের। প্রধানমন্ত্রী যেই দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই শুরু করেছে সেই মাত্র কট্টরপন্থীদের, নেতা নেত্রীদের সংবিধান ও গণতন্ত্র মনে পড়ে যায় বলে মত অনেকের।

Leave a Reply

you're currently offline

Open

Close