Press "Enter" to skip to content

বিজেপির দাবি সত্য! বিজেপি কর্মী হত্যার জন্য গেপ্তার এই তৃণমূল নেতার ছেলে।

এবার রাজ্যের পঞ্চায়েত ভোট ছিল সাধারণ মানুষেরর কাছে কার্যত দুঃস্বপ্নের। রাজ্যের শাসক দল, সমস্ত বিরোধীদের উপর অকথ্য অত্যাচার চালান। কোথাও বিরোধীদের নোমিনেশন জমা দেওয়াতে বাঁধা দেওয়া হয়, আবার কোথাও নির্বাচনে দাঁড়ানো প্রাথীকে ভয় দেখিয়ে নোমিনেশন তুলে নিতে বাধ্য করা হয়। কোথাও কোথাও আবার মারধর করা হয় বিরোধীদের। রক্ত ঝরে অনেক। তবে এইসবের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল ত্রিলোচন মাহাতো খুন। গত ৩০ মে রাজ্যের পঞ্চায়েত ভোটের ফল বেরোনোর ঠিক পরে খুন করে দেওয়া হয় পুরুলিয়ার বলরামপুরের কর্মী ত্রিলোচন মাহাতোকে। আততায়ীরা ত্রিলোচন কে খুন করে জামায় বার্তা লিখে দিয়ে যান। সেখানে লেখা ছিল ‘১৮ বছর বয়সে বিজেপির হয়ে রাজনীতি করার ফলই এবার তোর প্রাণনীতি হল।” তোকে ভোটের আগে থেকে মারার চেষ্টা করেছি কিন্তু পারি নি। তাই আজকে সুযোগ পেয়ে খুন করে দিলাম।

সেই খুনের ঘটনায় রাজ্যজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়। নানামহল থেকে নিন্দার ঝড় উঠে। অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ শুরু হয়ে যায়। বিজেপির তরফে অভিযোগ করা হয় যে, পুরুলিয়ায় এবার পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপির কাছে হেরে গিয়েছে তৃনমূল। তাই বিজেপির উত্থানকে আটঁকাতেই এই রকম খুন খারাবির রাজনীতি শুরু করেছে তৃনমূল কংগ্রেস।

এরপর চারিদিক থেকে রাজ্যে সরকারের উপর চাপ সৃস্টি করা হয় তদন্তের কাজ তাড়াতাড়ি শুরু করার জন্য। সেই তদন্ত করতে গিয়ে এবার নেতার ছেলেকে গ্রেপ্তার করা হয় বিজেপির যুব মোর্চার কর্মী ত্রিলোচন মাহাতোর খুনের দায়ে। ওই ঘটনায় প্রেক্ষিতে তদন্তে নেমে তদন্তকারী অফিসাররা এবার গ্রেপ্তার করলেন সন্দীপ মাহাতোকে যিনি পুরুলিয়া জেলা পরিষদের প্রাক্তন সভাধিপতি সৃষ্টিধর মাহাতোর একমাত্র পুত্র। কংগ্রেসের তরফে আগেই সরিয়ে দেওয়া হয়েছে সৃষ্টিধর মাহাতোকে। ফলে ছেলের গ্রেপ্তারে তার উপর আরও চাও বাড়ল বলেই ধরে নেওয়া হচ্ছে।

ত্রিলোচন মাহাতোর খুনের পর বিজেপি পার্টি করার অপরাধে এবার খুন করা হয় ২ জন বিজেপি কর্মীকে। তারপর রাজ্যের উপর চাপ বাড়তে থাকে ক্রমাগত তাই শেষ অব্দি রাজ্য সরকার তদন্তভার সি.আই.ডি কে দিতে বাধ্য হয়। সেই তদন্তে নেমে ইতিমধ্যে গোয়েন্দারা ২ জন কে গ্রেপ্তার করেছে। আর এবার গ্রেপ্তার করা হল খোদ প্রাক্তন জেলা সভাধিপতির ছেলেকে।

সিআইডি সূত্রের খবর পাওয়া গিয়েছে যে, পুলিশ তাদের হেফাজতে নিতে চায় সন্দীপকে। সন্দীপকে জিজ্ঞসা করে পুলিশ জানতে চাই যে আর কে কে যুক্ত রয়েছে এই ঘটনার সাথে।
#অগ্নিপুত্র