Press "Enter" to skip to content

সন্ত্রাসবাদ ছড়ানোর জন্য অস্ট্রিয়ায় বন্ধ হচ্ছে সাতটি মসজিদ, তাড়ানো হবে কয়েক ডজন ইমামকে।

অস্ট্রিয়ায় ডানপন্থী সরকার ক্ষমতায় আসার পরই স্কুলে স্কুলে হিজাব নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয়। আর এবার সাংবাদিক সম্মেলন করে অস্ট্রিয়া সরকার ঘোষণা করে দিল সে দেশের সাতটি বড় বড় বন্ধ করে দেওয়া হবে সেই সাথে অস্ট্রিয়া থেকে তাড়ানো হবে ডজন খানেক মুসলিম ইমাম কে। এই সাতটি বন্ধ মসজিদের মধ্যে একটি মসজিদ চালায় আরব সংগঠন আর বাকি ছয়টি চালায় তুর্কি সংগঠন।

এইদিন একটি সাংবাদিক সম্মেলন করে অস্ট্রিয়ার কালচার মিনিষ্টার জানিয়েছেন, এই সাতটি মসজিদ থেকে দেশজুড়ে ক্রমাগত উগ্রপন্থা ছড়ানো হচ্ছে। এছাড়া এই মসজিদ গুলি থেকে সংক্রান্ত নানান উগ্রবাদী মনোভাব শেখানো হচ্ছে সম্প্রদায়ের মধ্যে। এছাড়াও ধর্মকে কাজে লাগিয়ে রাজনীতি করার অভিযোগও উঠেছে এই মসজিদ গুলির দিকে। আর তাই অস্ট্রিয়া সরকারের স্পষ্ট বার্তা আমাদের দেশে এইরূপ উগ্রপন্থী বরদাস্ত করা হবে না।

মোট ৬ লক্ষ্যের বেশি মুসলিম থাকে অস্ট্রিয়ায় তারমধ্যে বেশির ভাগই তুর্কি সম্প্রদায়ের। আর তাই অস্ট্রিয়ার এই সিদ্ধান্তে কার্যত ক্ষুব্ধ হয়েছে তুরস্ক। এমনকি এই ঘটনার পর এটাকে ইসলাম বলে দাবি করে নিজের ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন ইব্রাহিম কালীন, ইনি হলেন তুরস্কের রাষ্ট্রপতি এরদোগানের মুখপাত্র।

কিন্তু তুরস্ক সরকারের কোনো মতবাদ কে গুরুত্ব দিতে নারাজ অস্ট্রিয়া সরকার। অস্ট্রিয়ার শাসক দলের মতে দেশের ঐতিহ্য ও িকে জলাঞ্জলি দিচ্ছে ইসলামিক সংগঠন গুলি। তাই তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিতে পিছুপা হবে না অস্ট্রিয়া সরকার।