Press "Enter" to skip to content

প্রয়াত অটল বিহারী বাজপেয়ীজির রেখে যাওয়া এই সম্পত্তির উত্তরাধিকারী কে জানলে…

৯৩ বছরের দীর্ঘ সময় ধরে অসুস্থ ছিলেন। ২০০৯ থেকে উনার শারীরিক অবস্থা খারাপ ছিল এবং উনি ওহীল চেয়ারে ছিলেন। অটল বিহারী বাজপেয়ীর পিতা কৃষ্ণ বিহারী বাজপেয়ী পেশায় শিক্ষক ছিলেনএবং মাতা গৃহস্থ নারী ছিলেন। অটলজির পরিবারে উনার মাতা পিতার সাথে উনার তিন ভাই অবোধ বিহারী, সাদা বিহারী ও প্রেম বিহারী ছিলেন। এছাড়াও উনার তিন বোনও ছিল। অটলজির প্রাথমিক শিক্ষা গোয়ালীয়রে সম্পন্ন হয়েছিল বলে জানা যায়। গোয়ালীয়রে অটল বিহারীর ভাইজি ক্রান্তি মিশ্র ও করুন শুক্লা থাকেন। গোয়ালীয়রেই উনার ভাইপো দীপক মিশ্র ও অনুপ মিশ্র থাকেন। আপনাকে জানিয়ে দি অনুপ মিশ্র ওখানের সাংসদ পদে রয়েছেন। ছোট থেকেই খুব প্রখর বুদ্ধিমত্তার ছিলেন। খুব কম বয়সেই রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ যোগদান করেছিলেন।

পরে তিনি প্রচারক হিসেবে নির্বাচিত হন যার জন্য উনি অবিবাহিত থাকেন। প্রসঙ্গত আপনাদের জানিয়ে দি, RSS এর সয়ংসেবক প্রচারকদের বিয়ে করা নিষিদ্ধ থাকে এবং তারা সারা জীবন RSS ও দেশের জন্য সমর্পিত করেন। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও একজন সয়ংসেবক প্রচারক হিসর্বে কাজ করেছেন। যখন উনি ১৯৯৮ এ ৭ রেসকোর্স পৌঁছান তখন উনার বন্ধু রাজকুমারী কোলের মেয়ে ও বাজপেয়ীজির দত্তক কন্যা নমিতা ভট্টাচার্য ও উনার স্বামী রঞ্জন ভট্টাচার্য অটলজির সাথে বাস করতে আসেন। রাজকুমারী কোলের ব্যাপারে বলা হয় যে জখন অটল বিহারী বাজপেয়ী প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তখন কোল বাজপেয়ীর বাড়ির সদস্য ছিলেন।

বাজপেয়ীজির স্বর্গবাসের পর সরকারিভাবে যে প্রেস রিলিজ করা হয়েছিল সেখানে রাজকুমারী কোলকে উনার বাড়ির সদস্য বলা হয়েছে। সাল ২০০৪ এ যখন লোকসভা নির্বাচনের জন্য শপদ পত্র জমা করা হয়েছিল তখন উনার চল অচল সম্পত্তির ৩ লক্ষ ৯৯ হাজার ২৩২ টাকা ৪১ পয়সা ছিল। পূর্ব প্রধানমন্ত্রী থাকার জন্য উনি মাসিক ২০,০০০ টাকা ও সাচিবিক সহায়তার জন্য ৬০০০ টাকা দেওয়া হতো। অটলজির স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তির কথা বললে ২০০৪ সালে শপদ গ্রহনের থেকে পাওয়া তথ্যে অনুযায়ী উনার নামে দিল্লির ইস্ট অফ কৈলাসে একটা ফ্লাট রয়েছে। যার মুল্য ওই সময় ২২ লাখ ছিল।

এছাড়াও উনার পৈতৃক নিবাস সিন্ধে ছবনে কমলা সিং বাগ এর মূল্য ছিল ৬ লক্ষ টাকা। অর্থাৎ হিসেব অনুযায়ী ২০০৪ সালে অটলবিহারী বাজপেয়ীজির মোট সম্পত্তি ছিল ২৮ লক্ষ টাকা। আপনাদের জানিয়ে দি, এখন উনার মতো সম্পত্তি কাকে দেওয়া হবে বা অটলজি এই ব্যাপারে কিছু বলে গিয়েছেন কিনা তা নিয়ে কিছু জানানো হয়নি। তবে ভারতের আইন অনুযায়ী অটলজির সম্পত্তি উনার দত্তক কন্যা নমিতা ও উনার স্বামী রঞ্জন ভট্টাচার্য পেতে পারেন।