Press "Enter" to skip to content

এই মুসলিম যুবক মহাদেবের মাথায় জল অভিষেক করে শুক্রুবারদিন নামাজ পড়তে গেছিলেন। তারপর উনার সাথে যা হলো জানলে…

শ্রাবণ মাস চলছে এই সময় শিবভক্তরা দলে দলে কাবাড় যাত্রায় ব্যাস্ত হয়ে পড়েছে। শিবভক্তরা বাবা শিবের মাথায় জল ঢেলে ভোলানাথের অভিষেক করছে এবং পুণ্য অর্জন করছে। মহাদেব শিব হিন্দুদের দেবতা হলেও বিশ্বের অনেক ধর্মের অনেক মানুষ কাবাড় যাত্রায় অংশ নিয়ে বাবা ভোলানাথের মাথায় জল অভিষেক করেন। এই রকমই উত্তরপ্রদেশের বাগবাত জেলায় এক মুসলিম যুবক মহাদেবের মাথায় জল ঢালার জন্য কাবাড় যাত্রা করেছিলেন।

কিন্তু মহাদেবের মাথায় জল ঢালা যে তার সমস্যা সৃষ্টি করবে তা মোটেও আন্দাজ করতে পারেনি ও মুসলিম যুবক। বাগবাত জেলার রানঝাড় গ্রামের বাবু খান নামে এক মুসলিম যুবক শ্রাবণ মাস উপলক্ষে মহাদেবের মাথায় জল ঢালার জন্য গঙ্গা থেকে জল আনতে গিয়েছিলেন। বাবু খান হরিদ্বার থেকে কাবাড় নিয়ে পুরা শিব ও গ্রামের শিবমন্দির গুলোতে জল অভিষেক করেন। কিন্তু এই জল অভিষেক বাবু খানের জীবনে সমস্যা সৃষ্টি করে যখন সে শুক্রুবার দিন নামাজ পড়ার জন্য মসজিদে পৌঁছান।

বাবু খান শুক্রুবার দিন নামাজ পড়ার জন্য মসজিদে গেলে সেখানে থাকা কট্টরপন্থী মুসলিম যুবককেরা বাবু খানকে মারধর করে এবং মসজিদ থেকে বের করে দেয়। বাবু খান নামাজ পড়তে চাইলে তাকে বেধড়ক মারধর করে নামাজ পড়া বন্ধ করে দেয়। শুধু এই নয় মসজিদ থেকে বের করার পর কট্টরপন্থীরা বাবু খানকে অকথ্য জঘন্য ভাষায় গালিগালাজ করে। ওই মুসলিম যুবকরা বাবু খানকে বলে যে এবার শুধু ঘন্টায় বাজা। পীড়িত বাবু খান এই মামলার অভিযোগে ৪ কট্টরপন্থী মুসলিম যুবকের বিরুদ্ধে রিপোর্ট দায়ের করিয়েছেন।

বাবু খান বিগত ৩ বছর ধরে মহাদেবের মাথায় জল ঢালার কথা ভাবছিলেন আর সেই জন্যেই এই বছর উনি হরিদ্বার থেকে কাবাড় নিয়ে যাত্রা করেছিলেন। তবে সেই সাথে উনি নিজের ধর্ম পালনের জন্য নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন মসজিদে। বাবু খান অভিযোগ দায়ের করে জানিয়েছেন যদি তাকে এইভাবে লাগাতার অত্যাচার করা হয় তাহলে উনি ধৰ্ম পরিবর্তন করতে বাধ্য হবেন।