Press "Enter" to skip to content

মিজোরামের বিধানসভা নির্বাচনে আগেই কংগ্রেস পেল এক বড় ঝটকা !

আগামী বছর দেশে লোকসভা ভোট। তার আগেই ভারতের ৫ টি রাজ্যে একসাথে অনুষ্ঠিত হবে বিধানসভা ভোট। এই ভোটকেই লোকসভা ভোটের আগে সেমি ফাইনাল হিসাবে ধরা হচ্ছে। যে ৫ টি রাজ্যে ভোট হবে সেই রাজ্য গুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য একটি রাজ্য হল । এটি একমাত্র এমন রাজ্য উত্তর- পূর্বের যেখানে তুলনামূলক কিছুটা হলেও মাথা তুলে দাঁড়াতে পারতো। কিন্তু এবার সেই রাজ্যেও ের অবস্থা শোচনীয়। বিধানসভা ভোটের আগে সেই রাজ্যের ের নামকরা নেতাদের মধ্যে দল ছাড়ার প্রবণতা দেখা দিয়েছে। একের পর এক বড়ো নেতা এখন ত্যাগ করছে। এর ফলে ের একমাত্র ভরসা েও এখন কংগ্রেসের শক্তি ক্রমশ হ্রাস পাচ্ছে। আগামী ২৮ শে নভেম্বর ে অনুষ্ঠিত হবে বিধানসভা ভোট। এই সময় যখন কংগ্রেস জোর কদমে প্রচার চালাচ্ছে সেই সময় কংগ্রেস পেল এক বড় ধাক্কা। কংগ্রেস দলের এক নামকরা নেতা এবার কংগ্রেস ছেড়ে চলে গেলেন।

হামিংডেলোভা নামে কংগ্রেসের এক বর্ষীয়ান নেতা সোমবার সরাসরি জানিয়ে দিয়েছেন যে, তিনি আর কংগ্রেস দলে থাকতে পারবেন না। তাই তিনি এইদিন তার পদত্যাগ পত্র দলের অফিসে দিয়ে এসেছেন। এর সাথে সাথে কংগ্রেসের বিধায়ক সংখ্যাও হ্রাস পেল। যেখানে ৪০ জন সদস্যের বিধানসভা ছিল সেই জায়গায় এখন তাদের ৩০ জন বিধায়ক রয়ে গেল। এই সংখ্যাহ্রাস দেখেই বোঝা যাচ্ছে যে এই মুহুত্তে মিজোরামে কেমন হাল হয়েছে কংগ্রেসের।

এখন মিজোরামে কংগ্রেসের পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে তাদের অনেক বিধায়কের সংখ্যা খালি পরে রয়েছে অথচ ভোটের আগে সেই জায়গা গুলি পূরন করতে পারছে না কংগ্রেস। মিজোরামে এক দফায় নির্বাচন হবে অর্থাৎ সমগ্র ভোট দান ২৮ তারিখেই হবে। কিন্তু দল ত্যাগী কংগ্রেস নেতা হামিংডেলোভা কংগ্রেস ত্যাগ করে কোন দলে যোগদান করবেন সেই ব্যাপারে এখন অবধি স্পষ্টভাবে কিছু জানা যায় নি।

কিন্তু এই মুহুত্তে রাজনৈতিক মহল এটাই ধারনা করছেন যে, একের পর এক বড়ো কংগ্রেস নেতা দের দল ত্যাগ করে যেভাবে চলে যাচ্ছে এতে এই রাজ্যে ে কংগ্রেস খুব একটা মাথা তুলে দাঁড়াতে পারবেন না।

মিজোরাম কংগ্রেসে মুখ্যমন্ত্রীর পর 2nd Man হিসাবে পরিচিত লালজিরিলিয়ানা যিনি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তিনিই সবার প্রথম কংগ্রেস ছেড়ে চলে যান। উনি দল ত্যাগ করেন ১২ ই অক্টোবর। উনার পর পার্টি ত্যাগ করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডাঃ Lullriniana Salo এছাড়াও উনি তার আরেক পদ অল ইন্ডিয়া কংগ্রেস কমিটির সাধারণ সম্পাদক পদ থেকেও পদত্যাগ করেন। কংগ্রেস ত্যাগ করে উনারা দুজনই যোগদান করেন মিজো ন্যাশনাল ফ্রন্ট পার্টি তে।

এরপর কংগ্রেস সবচেয়ে বড়ো ঝটকা তখন পায় যখন ভারতীয় জনতা পার্টি তে যোগদান করেন দলের বিধায়ক বুদ্ধ ধন চাকমা। উনি দল ত্যাগ করার সময় মৎস্য মন্ত্রী ছিলেন।

এইভাবে মিজোরামে বিধানসভা ভোটের আগে একের পর এক বড়ো নেতার দলত্যাগ করায় বেশ চাপে পরে গেছে কংগ্রেস। রাজনৈতিক মহলের মতে এখন দেশের রাজনীতি থেকে কংগ্রেস চিরতরে মুছে যাবার মত অবস্থায় আছে। কারন দেশের সাধারণ জনতা এই নোংরা, স্বার্থলোভী কংগ্রেস কে আর মেনে নিতে পারছেন না।
#অগ্নিপুত্র