Press "Enter" to skip to content

হিন্দু উৎসব দীপাবলি উপলক্ষে বাজি ফাটিয়েছিল এক বাচ্চা! তার পিতাকে গেপ্তার করে ঢুকিয়ে দেওয়া হলো জেলে।

জাতির নামে বিভাজিত হিন্দুদের জন্য কত বড় খারাপ ও দুর্দশাপূর্ন দিন আসতে চলেছে তার প্রমান মিললো আবারো। হিন্দুদের উৎসব আনন্দকে কিভাবে দাবিয়ে রাখার পরিকল্পনা চলছে তার বড়ো উদাহরণ দিল দিল্লী। এই দেশে কোনো বিয়েতে, পার্টিতে বা কোনো খেলায় জয়লাভ করলে রাতভর বাজি ফাটানো হয় কিন্তু কোনো ছোট বাচ্চা দীপাবলির নামে বাজি ফাটালে তার বাবাকে গেপ্তার করা হয়। দিল্লীর গাজীপুরে এক বাচ্চা দিপাবলী উৎসব পালনের জন্য ফটকা ফাটানোয় তার বাবাকে গ্রেপ্তার করে নেওয়া হয়েছে। দিপাবলীতে ফটকা ফাটানো নিয়মের উলঙ্ঘন বলে বাচ্চার বাবাকে গেপ্তার করেছে পুলিশ এবং একইসাথে তার নামে FIR দায়ের করা হয়েছে। জানিয়ে দি এখন দিল্লীতে কেজরিওয়ালের চলছে।

দেশে অন্যসম্প্রদায়ের অগণিত অবৈধ ধার্মিক স্থল আছে, এমনকি আদালত সেই সব ধার্মিক স্থলের বিরুদ্ধে একশন নেওয়ার জন্য আদেশ দিয়েছে। তবে আজ অবধি কোনো পুলিশের সাহস হয়নি অন্য সম্প্রদায়ের ধার্মিক স্থলে হাত দেওয়ার।
কিন্তু দীপাবলিতে এক হিন্দু বাচ্চা আনন্দ করে ফটকা ফাটানোয় তার বাবাকে গেপ্তার করে নেওয়া হয়েছে এবং উনার বিরুদ্ধে FIR দায়ের করা হয়েছে।

এখন পরিস্থিতি এমন হয়েছে যে হিন্দুদের উৎসব এলেই কিছু ও তথাকথিত বুদ্ধিজীবীরা পৌঁছে যান আদালতে হিন্দু উৎসবের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করতে। কিছু সপ্তাহ আগেই এক বুদ্ধিজীবী আদালতে উপস্থিত হয়েছিল। খ্রিষ্টান বুদ্ধিজীবীর দাবি ছিল মহারাষ্ট্র সরকার হিন্দুদের উৎসবের জন্য ১ টাকাও যেন না খরচ করে তার নির্দেশ দিক আদালত।

কোনো মহাপুরুষ বলেছিলেন, অন্যায় যে করে তার থেকেও বেশি অপরাধী অন্যায় যে সহে। হিন্দুদের ক্ষেত্রেও সেটা প্রযোজ্য, হিন্দুদের নিশ্চুপতার কারণেই আজ হিন্দুদের দুর্দশা। এটা নিশ্চিত যদি হিন্দুরা এখনো জাতিভেদের উপরে উঠে একহয়ে প্রতিবাদ করতে না শেখে তাহলে আর বড়ো দুর্দশা সামনে আসছে। জানিয়ে দি , এই ইস্যু নিয়ে কোনো মুখ খুলবে না, কারণ দেশের বিক্রেত মিডিয়া শুধুমাত্র নিজেদের এজেন্ডার উপর কাজ করে। কোনো কট্টরপন্থী গরু চুরি করতে গিয়ে মার খেলে মিডিয়া সেটা নিয়ে ডিবেটের পর ডিবেট করে কিন্তু হিন্দুদের উপর অত্যাচারের সময় মিডিয়ারা কোথায় যেন লুপ্ত হয়ে যায়।