Press "Enter" to skip to content

ভারতের নাগরিকত্ব হারালেন ৪০ লক্ষ অবৈধ বাংলাদেশি! এবার কি পদক্ষেপ নেবে ভারত?

আজ আসামে ন্যাশনাল রেজিস্টার অফ সিটিজেন এর দ্বিতীয় তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। এই তালিকা অনুযায়ী এখনো পর্যন্ত প্রায় ৪০ লক্ষ মানুষ ভারতের নাগরিকত্ব হারিয়েছেন। আগে আসামের জনসংখ্যা ছিল ৩ কোটি ২৯ লক্ষ তা এখন হয়ে দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ৮৯ লক্ষতে। আসলে আসাম এ বহু বছ ধরে অবৈধ বাংলাদেশি প্রবেশের দাবি উঠে এসেছে। শুধু তাই নয় স্থানীয় নেতা মন্ত্রীরা অবৈধ বাংলাদেশিদের ভোট দেওয়ার ব্যাবস্থাও করে দিয়েছিল যাতে ক্ষতি হচ্ছিল ভারতের। এখন সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ পর বৈধ ভারতীয়দের নাম বের করার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করলো। এই বিষয় নিয়ে যেতে কেউ গুজব রোটাতে না পারে সেই জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল ইন্টারনেট পরিষেবা। ১৪ টি স্পর্শকাতর জেলায় নিযুক্ত করা হয়েছে ২০ টি কোম্পানির অর্ধসেনা বাহিনী।

রাজনাথ সিং জানিয়েছেন যাদের নাম তালিকায় নেই অথচ তারা নিজেদের বৈধ বলে মনে করেন তাদের জন্য অনেকগুলি সুযোগ থাকবে উপযুক্ত প্রমানপত্র পেশ করার। ৩০ আগস্ট থেকে ২৮ শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জনগণের কাছে সময় থাকবে উপযুক্ত প্রমানপত্র পেশ করে বৈধ দাবি করার। এখন প্রশ্ন হচ্ছে অন্তিম পর্যায়ে যারা অবৈধ বলে ঘোষিত হবে তাদের কি করা হবে?

আপনাদের জানিয়ে দি, ২৪ মার্চ ১৯৭১ এর রাতের পর যারা বা যাদের পূর্বপুরুষরা ভারতে প্রবেশ করেছিলেন তাদের সম্পুর্নরূপে বিদেশি বলে ঘোষণা করা হবে। এই পর সম্ভবত ভারতে ভোট দেওয়ার যে অধিকার বিদেশিদের কাছে থাকবে তা বাতিল করা হবে। এই বিদেশিদের জন্য ডিটেনশন সেন্টার তৈরি করে সেখানে এই বিদেশিদের থাকার ব্যাবস্থা করা হতে পারে।

সেই সাথে চালু হতে পারে বাংলাদেশ সরকারের সাথে ভারতের কথাবার্তার পক্রিয়া। এই সমস্ত পক্রিয়া দীর্ঘ সময় ধরে চলবে বলে মনে করা হচ্ছে কারণ বিদেশিদের ভেরিফাই করার জন্য বাংলাদেশের সরকার সময় নেবে। তারা যাচাই করবে যে ভারতে অবৈধভাবে থাকা বাংলাদেশিরা সত্যিকারের বাংলাদেশি কিনা। এই ডিটেনশন ক্যাম্পে রাখা এরিয়াকে চিহ্নিত করার পর তাদের ভোট অধিকার বাতিল করা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।