Press "Enter" to skip to content

দিল্লীতে শীঘ্রই হবে বিধানসভা নির্বাচন! নিজেকে হিন্দু প্রমাণিত করতে বৈষ্ণো দেবী মন্দিরে যাবেন কেজরিওয়াল।

দিল্লীতে খুব তাড়াতাড়ি বিধানসভা নির্বাচন  হবে, আর তা নেতারা বিধানসভার প্রস্তুতির জন্য লেগে পড়েছে। দিল্লীতে তিনটি প্রধান দল আছে যার মধ্যে আম আদমি পার্টি ক্ষমতায় আছে এবং বিজেপি ও কংগ্রেস বিরোধী দল হিসেবে আছে।
কিছুদিন আগে ের ফল সামনে এসেছিল, আর যা ট্রেন্ড ছিল সেই হিসাবে দিল্লির ৭০টি সিটে আম আদমি পার্টি বাজে ভাবে হেরেছিল, এমনকি দিল্লী বিধান সভা সিটে যেখানে কেজরিওয়াল স্বয়ং বিধায়ক ছিল সেখানেও আম আদমি পার্টির লজ্জাজনক হার হয়েছিল।

নির্বাচনের ফলের পর  কেজরিওয়াল ও তার পার্টির পুরো ফোকাস দিল্লী বিধানসভা নির্বাচনের উপর রয়েছে। এর কারণে কেজরিওয়াল দিল্লীতে অনেক ধরনের কাজ শুরু করে দিয়েছে। এখন দিল্লী থেকে যে খবর আসছে সেই অনুযায়ী কেজরিওয়াল বৈষ্ণো দেৱী যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। খবর সামনে আসার পর থেকে সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে নানা মতামত সামনে আসতে শুরু হয়েছে। আসলে কেজরিওয়াল হিন্দুদের অবহেলা করে মিশনারিদের সহযোগিতা ও মুসলিম তোষণের দিকে বেশি ঝুঁকে থাকেন। কিন্তু এখন বিধান সভা নির্বাচন সামনে আসতেই উনি বৈষ্ণো দেৱী মন্দির যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

কেজরিওয়ালের ব্যাপারে অনেকে বলেন যে তিনি একজন ধর্মান্তরিত খ্রিস্টান। কেজরিওয়াল রাজনীতিতে আসার আগে
খ্রিস্টান মিশনারি সাথে অনেক বছর ধরে কাজ করতে থাকতেন। দিল্লীতে বহুসংখ্যক আছে ও  কেজরিওয়াল ভালো করে জানে তাকে নিজেকে হিন্দু দেখাতে হবে নাহলে ে জেতার কোনো সুযোগ নেই। এই কারণে কেজরিওয়াল এখন বৈষ্ণু দেবী যাচ্ছে। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, ২০ জুলাই কেজড়িওয়াল নিজের পুরো পরিবারের সঙ্গে বৈষ্ণো দেৱী যাচ্ছেন। শুধু তাই নয় মনীষ সিসোদিয়া যিনি মিশনারি ও NGO এর সময় থেকেই কেজরিওয়ালের সাথী ছিলেন এবং তিনিও বৈষ্ণো দেৱী যাচ্ছেন।

ে গত বিধানসভার নির্বাচন হয়েছিল তখন হিন্দু হওয়ার রাজনীতি করেছিলেন, মন্দিরে মন্দিরে ঘুরে ছিল। আর এটাও সত্য যে কংগ্রেস কে গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনে এর ভালো ফল পেয়েছিল। এবার দিল্লীতে বিধানসভার নির্বাচন আছে তাই কেজরিওয়াল  যিনি দিল্লীর মন্ধির জুতো পরে ঢোকেন বলে অভিযোগ আসতো, ৫ বছর ধরে একটানা মুসলিম তুষ্টিকরণ করছে এবং হিন্দু ধর্মকে নিয়ে অনেকবার আপত্তিজনক কাজকর্ম করে এসেছে, তিনিও হিন্দু হওয়ার জন্য মাঠে নেমে পড়েছেন।