Press "Enter" to skip to content

দেশের শিক্ষিত যুবকদের জন্য আচ্ছে দিন! ফেব্রুয়ারি মাসে থেকে চালু হচ্ছে এই পরিষেবা।

যিনি সব প্রজা কে সমান চোখে দেখে তিনিই তো প্রকৃতি রাজা। নিজেকে দেশ এর প্রধান সেবক হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন আমাদের মোদি জি। জাতি ধর্ম নির্বিশেষ এ সবার কথা উনি ভাবেন। তাই জাতি ভিত্তিতে না দেখে শুধু ছাত্র দের গরিবতার দিক থেকে বিচার করে সুবর্ণ জাতিকে(সাধারণ বর্গ) 10% দিয়েছেন। তার জন্য আজ দেশ এ কোটি কোটি ছাত্র উপকৃত হয়েছে। সদনে বিল পাস হয়ে গেছে অনেক আগে। রাষ্ট্রপতির সাক্ষর হয়ে গেছে। রাজ্য সরকারগুলি নতুন আইনকে লাগু করতে শুরু করেছে।

এই সূত্রে আমরা বলে রাখি বিজেপি বিরোধী কিছু রাজ্য সরকার এই বিলটি এখনো পর্যন্ত গ্রহণ করেনি যেমন আমাদের পশ্চিমবঙ্গের মমতা সরকার এই বিল এর বিরোধিতা করেছে। উনার কাছে ছাত্রদের জীবন এর থেকে রাজনীতি অনেক বড়। তাই মোদি সরকার এর যে কোনো কাজ কে তিনি পচিমবঙ্গে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না বলে মত অধিকাংশের। তবে রাজ্য সরকার ও শিক্ষা ক্ষেত্রে এখনো আইন লাগু না করলেও কেন্দ্র সরকার আরো একটা বড় ঘোষণা করে দিয়েছে যার দ্বারা সমস্ত রাজ্যের ছাত্রছাত্রী,যুবকরা লাভবান হবে। রাজ্য সরকারের চাকরির ক্ষেত্রে আচ্ছে দিন না এলেও কেন্দ্র সরকারের চাকরিতে আচ্ছে দিন আসতে চলেছে খুব শীঘ্রই।

খবর অনুযায়ী, ১ ফেব্রুয়ারি থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের সব চাকরিতে সংরক্ষণ পেতে চলেছে সমস্ত গরিব চাকরিপ্রার্থী রা।শুধুমাত্র সাধারণ শ্রেণী গরিব দের জন্য এই সংরক্ষণ বিল পাস করেছে মোদি সরকার।দেশ এ মোট৩৩৯ টি রাষ্ট্রীয় সংস্থা রইছে সেই সমস্ত সংস্থা তে ছাড় পেতে চলেছে সাধারণ শ্রেণীর চাকরিপ্রার্থীরা। কেন্দ্র সংস্থা গুলি কে জারি করেছে ১ফেব্রুয়ারি থেকে সংরক্ষণ দিতে হবে। এই ব্যাপার এ ১৫ দিন অন্তর অন্তর কেন্দ্র কে রিপোর্ট দিতে হবে।

মোদি সরকার চাইছে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ভারতীয় চাকরিপ্রার্থী যেন এই সুযোগ এর ব্যবহার করতে পারে। সেই প্রচেষ্টায় দ্রুত কাজ চলছে। কেন্দ্রীয় সংস্থা গুলো কে আগেই বিস্তারিত বিবরণ দেওয়া হয়েছে নিয়ম অনুসারে যাদের পরিবার এর বার্ষিক আয় ৮লক্ষের নীচে বা যাদের ৫ একর এর কম কৃষি জমি আছে তারা এই সুযোগ ভোগ করতে পারবে।

মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্ৰী প্রকাশ জাভেডকর জানিয়েছেন এই সংরক্ষণ এ স্কুল ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও ছাড় পাওয়া যাবে। রাজ্য সরকার সংরক্ষণ কখন থেকে লাগু করবে সেটা বোঝা যাচ্ছে না ঠিকই কিন্তু কেন্দ্রের চাকরি বা শিক্ষা ক্ষেত্রে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে এই আইন লাগু হতে চলেছে।

তারা দেশ এর উন্নতি চাই না তাদের চাই মোদী বিরোধী করা।উন্নতির পথে বাঁধা হয়ে দাঁড়ানো তার জন্য তারা দেশ কে ও বিক্রি করতে পারে। শত বাধার পরে ও মোদি সরকার গরিব ছাত্রদের কথা ভেবে এই সিদ্ধান্ত নেয় তার জন্য দেশ খুব আনন্দিত বলে মত এক বিজেপি সাংসদের।

7 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.