Press "Enter" to skip to content

জোট নিয়ে শিবসেনা দিল বড় ইঙ্গিত! খুশির হাওয়া বিজেপি মহলে…

নেতাজী বলেছিলেন- দেশকে স্বাধীন করতে সমগ্র ভারতবাসী এক হও অন্যদিকে আজ সোনিয়া গান্ধী বলছেন আমার ছেলেকে প্রধানমন্ত্রী করতে দেশের সব চোর এক হও। উক্তির তাৎপর্য এই যে নরেন্দ্র মোদীকে হারানোর জন্য রাহুল থেকে কেজরিওয়াল, মায়াবতী থেকে অখিলেশ সব নেতারা জোট হতে শুরু করেছে। আসলে লোকসভা নির্বাচন হতে মাত্র আর কয়েক দিনের বাকি এর মধ্যে জোর দিয়ে প্রচারের সাথে সাথে সমস্থ পার্টি নিজের নিজের মতো করে পরিকল্পনা তৈরি করতে শুরু করে দিয়েছে। মাত্র ২ থেকে ৩ মাস রাজনৈতিক দলগুলির হাতে রয়েছে তারপরেই শুরু হবে পরীক্ষা পদ্ধতি। এমন পরিস্থিতিতে বিজেপিও নিজের পুরানো শরীকদের সমর্থন পাওয়া আশায় বসে রয়েছে।

হাতে মাত্র ২-৩ মাস সময়ের মধ্যে বিজেপির জন্য একটা বড় খবর সামনে এসেছে যা কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের খুশির মহল সৃষ্টি করেছে। প্রথমত জানিয়ে দি, ও শিবসেনার বহু সময় ধরে একসাথে কাজ করছে। এমনকি ২০১৪ নির্বাচনেও দুই হিন্দুত্ববাদী পার্টি একসাথে মিলে জয়লাভ করতে সক্ষম হয়েছিল। আগের নির্বাচনে এই দুই পার্টি মিলিতভাবে ৪৮ টি আসনের মধ্যে ৪২ টি আসনে জয়লাভ করেছিল। তবে আগের বারের তুলনায় এবারের পরিস্থিতি একটু আলাদা রয়েছে।

বিগত কিছু মাসে নান মত ও সিধান্ত নিয়ে দুই পার্টির মধ্যে ফাটল দেখা গিয়েছে। অমিত শাহ এবং উদ্যব ঠাকরে অনেকবার আলাদা আলাদা করে নির্বাচন লড়াই করার জন্যও ভাষণ দিয়েছেন। যদিও দুই পার্টি একে অপরকে আক্রমন করার জন্য ইঙ্গিত হিসেব আলাদা আলাদা নির্বাচন লড়ার জন্য ঘোষণা করেছিল। কোনো আধিকারিক ঘোষণা এই নিয়ে করা হয়নি। মিডিয়া বিষয়টি হাইলাইট করে দেখিয়েছে। তবে ২ দিন আগে শিবসেনার এক বৈঠকের পর বড় মন্তব্য সামনে এসেছে যা রাজনীতির সমীকরণ পাল্টে ফেলেছে।

উদ্যব ঠাকরের নেতৃত্বে বৈঠক হওয়ার পর সাংসদ সঞ্জয় রাউত বলেছেন আমরা মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে বরাবর বড় ভাইয়ের ভূমিকা পালন করেছি এবারের ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনেও তার ব্যতিক্রম হবে না। বড় ভাই হওয়ার দরুন আমরা মহারাষ্ট্রের রাজনীতির উপর খাসা খেয়াল রাখবো এবং NDA এর হয়ে আবার নির্বাচন লড়ব। সঞ্জয় রাউতের কথায় পরিষ্কার বোঝা গেছে যে আবার বিজেপির সাথে নির্বাচন লড়তে চলেছে এবং NDA এর সদস্য হয়েও থাকতে চাইছে।

5 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.