Press "Enter" to skip to content

জম্মু কাশ্মীরে পুনরায় সরকার গঠন নিয়ে বড়ো বক্তব্য দিলেন বিজেপি নেতা রাম মাধব।

জম্মুকাশ্মীরে পিডিপির উপর থেকে সমর্থন সরিয়ে নিয়েছিল বিজেপি যার জন্য মেহবুবা মুফতির সরকার ভেঙে জারি হয়েছিল রাজ্যপাল শাসন। দেশের বাকি পার্টিগুলো জম্মুকাশ্মীরে সরকার গঠনের চেষ্টাও করেছিল কিন্তু সংখ্যার কমতির কারণে কোনো দল সক্ষম হয়নি। অন্যদিকে পিডিপির বিধায়করা মেহেবুবা মুফতিকে বড়ো ঝটকা দেয়ার জন্য প্রস্তুত হয়ে পড়েছে। যারপর বিজেপির বরিষ্ঠ নেতা রাম মাধব জম্মু কাশ্মীরকে নিয়ে বড় মন্তব্য করেছেন। পিডিপি সরকারের পতনের পর পিডিপির যুবা নেতারা যোগ দেয় এবং কিছু বিধায়ক বিজেপিতে যোগ দেওয়ার সংকেত দেয়।

আসলে তাদের অভিযোগ মেহেবুবা মুফতি নেহেরু/গান্ধী পরিবারের মতো পারিবারিক শাসন শুরু করেছিল। যার পর পিডিপি দুর্বল হয়ে পড়ে এবং রাজনৈতিক সংকটে পড়ে যায়। যদিও পিডিপির সরকার ভাঙার পরেও এখনো পর্যন্ত জম্মুকাশ্মীরে কোনো দল সরকার গঠন করতে পারেনি। এক কার্যক্রমে রাম মাধব বলেন, ভবিষ্যতে জম্মুকাশ্মীরের সরকারে বিজেপি যুক্ত থাকবে। কারণ এই রাজ্যে কখনো সরকারে না থাকার দূর্ভাগ্য শেষ হয়ে গেছে।

রাম মাধব বলেন, আমি বিশ্বাস করি আবার যখন জম্মুকাশ্মীরে সরকার গঠন হবে তখন বিজেপি সেই দলের অংশ হবে। আপনাদের জানিয়ে দি, বিজেপি ও পিডিপির বিধায়কেরা মিলে আবার সরকার গঠন করতে পারে কিন্তু এবার মুখ্যমন্ত্রী পদে মেহেবুবা মুফতি থাকবে না বরং থাকতে পারে কোনো হিন্দু নেতা। আপনাদের আরো জানিয়ে দি, আতঙ্কবাদী ও পাথরবাজদের ব্যাপারে বিজেপি ও পিডিপির নীতি কখনো মিল খেত না তাই দেশের স্বার্থে সরকার ভেঙেছিল বিজেপি। আসলে সরকারের মুখের আড়ালে মেহবুবা জঙ্গিদের তোষণ করতো বলে অভিযোগ ছিল।

এখন পিডিপির বিধায়করা ও বিজেপির বিধায়করা যদি জম্মু কাশ্মীরে আবার সরকার গঠন করে তাহলেও মেহেবুবা মুফতিকে কোন ভাবেই মুখ্যমন্ত্রী পদে রাখা হবে না বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। বরং মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে কোনো হিন্দু নেতাকে নিয়ে আসতে পারে অমিত শাহ ও তার টিম। যদিও এই বিষয়ে এখনো পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করেনি বিজেপি বা পিডিপির নেতারা।