Press "Enter" to skip to content

আর নীল সাদা রং নয়! পঞ্চায়েত জয়ের পরেই রাতারাতি গেরুয়া করে দেওয়া হল এই জেলার অফিস।

রাজ্য জুড়ে ভোটে এত সন্ত্রাস চলার পরও ভালো ফল করেছে । রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় ক্ষমতার রদবদল হয়েছে। তৃনমূলের হাত থেকে ক্ষমতার পরিবর্তন হয়ে বিজেপির হাতে এসেছে ক্ষমতা। শুধুমাত্র ক্ষমতারই বদল হয় নি, সেই সাথে বদল হয়েছে পঞ্চায়েত অফিস গুলির রং এর। পঞ্চায়েত অফিস গুলির রং এখন পরিবর্তন হয়ে -সবুজ হয়ে গিয়েছে। আগে সেই সমস্ত অফিস গুলির রং ছিল নীল-সাদা। এমনই এক বির্তক দানা বেঁধেছে মণ্ডলকুলি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় যেটি অন্তর্গত বাঁকুড়ার রাইপুর ব্লকের। সেই এলাকার তৃণমূল নেতৃত্ব অভিযোগ তুলেছেন যে, এলাকার পঞ্চায়েত দখল করার পরে পঞ্চায়েত অফিস গুলিকে জোরপূর্বক গেরুয়া রং করে দিয়েছে। বিজেপির তরফে অবশ্য এই বিষয়টি পুরোটাই ছেড়ে দেওয়া হয়েছে স্থানীয় নেতৃত্বের উপর।

জঙ্গলমহলের মণ্ডলকুলি ও ঢেকো গ্রাম গতবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃনমূলের দখলে থাকলেও এবার তাদের হাতছাড়া হয় এই পঞ্চায়েত। এবারের নির্বাচনে ওই পঞ্চায়েতের ১৫ টি আসনের মধ্যে বিজেপি দখল করে ১৩ টি আসন, এবং শাসক দল তৃনমূল পায় মাত্র ২ টি আসন। সংখ্যাগরিষ্ঠতার রাই দেয় বিজেপির পক্ষে তাই বিজেপি বন্দনা মণ্ডল এর নেতৃত্বে পঞ্চায়েত বোর্ড গঠন করে। এরপরই তৃণমূলের অভিযোগ যে, বিজেপি লোকেরা পঞ্চায়েতে জেতার পরই পঞ্চায়েত অফিসের নীল-সাদা রং পালটে করে দিয়েছে গেরুয়া রং।

এদিকে মণ্ডলকুলি পঞ্চায়েতের নবনির্বাচিত প্রধান বিজেপি নেত্রী বন্দনা মণ্ডল দাবি করেন যে, পঞ্চায়েতের দেওয়ালের রং ফিকে হয়ে গিয়েছিল সেই জন্যই নুতন করে রং করা হয়েছে অফিসটি। সেখানকার স্থানীয় নেতারাই ঠিক করেছেন যে পঞ্চায়েতের দেওয়ালের রং গেরুয়া করা হবে, এই ব্যাপারে আমি কিছু সিদ্ধান্ত নিই নি। কিন্তু তৃনমূলের নেতারা যে দাবি করছেন এটা নিয়ম মেনে করা হয় নি, সেটা একদমই মিথ্যাচার। পুরোপুরিভাবে নিয়ম মেনেই করা হয়েছে রং এর কাজ। এই কাজের জন্য ঠিকাদার নিয়োগ করাও হয়েছিল।

বিবেকানন্দ পাত্র যিনি বাঁকুড়া জেলার বিজেপি সভাপতি তিনি অবশ্য দাবি করেন যে, তৃনমূল শুধুমাত্র রাজনৈতিক স্বার্থেই জলঘোলা করছে এই ছোটো ব্যাপারটি নিয়ে। কারন সরকারিভাবে এইরকম কোনো নির্দেশিকা নেই যেখানে বলা আছে যে পঞ্চায়েত অফিসের রং শুধুমাত্র নীল-সাদা করতে হবে, তাছাড়া এমন অনেক অফিস আছে যেখানে অন্য রং করা আছে অফিস গুলিতে। তাই এই অফিসে গেরুয়া রং করা নিয়ে তৃনমূল যেটা করছে সেটা একদমই কাম্য নয়।
রাইপুরের বিডিও সঞ্জীব দাস কে এই ব্যাপারে অভিযোগ জানানো হলে তিনি বলেন যে, শুধুমাত্র নীল-সাদা রং ই যে করা যাবে অন্য কিছু করা যাবে না এমন কোনো সরকারি নির্দেশিকা আমাদের কাছে নেই। তাই এই ব্যাপারে আমি কিছুই করতে পারবো না।
#অগ্নিপুত্র