Press "Enter" to skip to content

কর্ণাটকে বিজেপির প্রতিষ্ঠাতা কেন্দ্রীয় মন্ত্ৰী অনন্ত কুমার পরলোকগমন করলেন! শোকাহত প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি।

কেন্দ্রীয় সংসদীয় মন্ত্রী (৫৯) বিগত রাত ২ টোর সময়ের পরলোকগমন করেছেন। কিছুদিন ধরে অসুস্থ থাকা অনন্ত কুমার আইসিসিইউতে ভেন্টিলেটর এ ছিলেন। অসুস্থ হওয়ার কারণে শ্রী শঙ্কর ক্যান্সার হাসপাতালে উনার চিকিৎসা চলছিল। উনি ফুসফুসের ক্যানসার ও ইনফেকশন দ্বারা আক্রান্ত ছিলেন। অন্তিম সংস্কারের আগে উনার পার্থিব শরীরকে ব্যাঙ্গালুরুর ন্যাশনাল কলেজে রাখা হবে। অনন্ত কুমারকে কর্ণাটকে দ্বিগজ নেতাদের মধ্যে গোনা হতো। কর্ণাটকে বিজেপিকে স্থাপিত করার পেছনে উনার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল বলে মনে করা হয়। ব্যাঙ্গালুরুর দক্ষিণ থেকে উনি ৬ বার সাংসদ ছিলেন। ২০১৪ সালে বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর উনি কেন্দ্রে রসায়ন মন্ত্রী পরে সাংসদীয় মন্ত্রী ছিলেন। সমস্থ নেতাদের সাথে উনার সম্পর্ক খুবই ঘনিষ্ঠ ছিল, বিজেপির মধ্যে উনাকে ট্রাবল শুটার বলা হতো।

২২ জুলাই ১৯৫৯ সালে ব্যাঙ্গালুরুতে জন্মগ্রহণ করা অনন্ত কুমার কর্ণাটক ইউনিভার্সিটি থেকে উকালতির পড়াশোনা করেছিলেন। অনন্ত কুমারের একটা বড়ো উপলদ্ধি ছিল GST বিলকে রাজ্যসভায় পাশ করানো। GST পাশ করানোর জন্য সরকারের কাছে বহুমত ছিল না কিন্তু অনন্ত কুমারের মতো দ্বিগজ নেতার কারণেই এই বিল পাশ করানো সম্ভব হয়েছিল। ২২ অক্টোবর থেকে অনন্ত কুমার শঙ্কর ক্যান্সার হাসপাতালে চিকিৎসা করাচ্ছিলেন।

উনাকে অন্য কোনো দেশে গিয়ে চিকিৎসা করানোর পরামর্শ দিয়েছিলেন ঘনিষ্ট ব্যক্তিরা কিন্তু উনি সাফ কথায় মানা করে দিয়েছিলেন এবং দেশে থেকেই চিকিৎসা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। এবং রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ এই ঘটনায় বেদনা ব্যাক্ত করেছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন উনি একজন তীক্ষ্ণ বুদ্ধিসম্পন্ন নেতা ছিলেন যিনি খুব কম বয়সে আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, উনি খুবই পরিশ্রমী ছিলেন এবং মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করেছিলেন। উনার ভালো কাজের জন্য উনাকে সর্বদা স্মরণ করা হবে। প্রধানমন্ত্রী অনন্ত কুমারের স্ত্রী ডক্টর তেজস্বিনীর সাথে কথা বলে সমবেদনা ব্যাক্ত করেছেন। রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং তাদের সমবেদনা ব্যাক্ত করেছেন। রাষ্ট্রপতি বলেছেন, এই ঘটনা কর্ণাটক সহ পুরো দেশের জন্য একটা দুখঃজনক ঘটনা।