Press "Enter" to skip to content

অমিত শাহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পর থেকে JNU এর আজাদি গাং পড়াশোনায় মনযোগ দিয়েছে: আতিফ রাশিদ, বিজেপি নেতা।

অমিত শাহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পর থেকে দেশের ভাব ভঙ্গিমা যেন বদলে গেছে। দুর্নীতি ও আতঙ্কবাদ দুইয়ের উপর একসাথে প্রহার চলছে। অমিত শাহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পর সরকার জম্মু-কাশ্মীর থেকে ধারা ৩৭০ অপসারণ করেছে। এখন কাশ্মীরকে মূলধারার সাথে জুড়ে ফেলার জন্য কাজ দ্রুতগতিতে চলছে। শুধু এই নয়, এখন জন্য পাক অধিকৃত কাশ্মীরকে ভারতের সাথে একীকরণের পথেও রাজনৈতিক স্তরে কাজ শুরু হয়েছে।

দুর্নীতি দমনের দিকে নজর দিলে পি চিদম্বরম এখন জেলে পৌঁছে গেছে। রাহুল গান্ধী, সোনিয়া গান্ধী বেল নিয়ে জেলের বাইরে রয়েছে। অমিত শাহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পর থেকে দেশের আজাদি গ্যাংও প্রায় যেন ঘুমিয়ে পড়েছে। বলা হচ্ছে অমিত শাহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পর JNU এর আজাদি পড়াশোনাতে মনযোগ দিয়েছে। এর মধ্যে বিজেপি নেতা আতিফ রাশিদির এক টুইট সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হচ্ছে। সেখানে বিজেপি নেতা বলেছেন যখন থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদে অমিত শাহ এসেছেন তখন থেকে JNU ছাত্রছাত্রীরা আজাদী ছেড়ে পড়ায় মন দিয়েছে।

আসলে অমিত শাহ পদে আসার পরে থেকে JNU তে কোনো ছাত্রকে দেশ বিরোধী শ্লোগান করতে দেখা যায়নি। সেই হিসেবে অমিত শাহের প্রভাবকেই এই সুফলের মূলে ধরা হচ্ছে। অমিত শাহ আসার পর দেশদ্রোহী আইনকেও শক্তপোক্ত করে দেওয়া হয়েছে। যার দরুন দেশদ্রোহী গ্যাং গুহায় শীতগুম দিতে ঢুকে পড়েছে। অন্যদিকে কাশ্মীরে কট্টরপন্থী ও বিচ্ছিন্নবাদী নেতাদেরও গ্রেফতার করে রাখা হয়েছে এবং কাশ্মীরে শান্তি প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করা হচ্ছে।

you're currently offline