Press "Enter" to skip to content

মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস সরকারের উপর চরম সঙ্কট! সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করার জন্য রাজ্যপাল ডাকতে চলেছেন বিশেষ অধিবেশন

লোকসভা নির্বাচনের (Lok Sabha Election) ফলাফল আসার মাত্র আর দুই দিন বাকি আছে। আর এর আগেই মধ্যপ্রদেশে (Madhya pradesh) রাজনৈতিক অস্থিরতা বেড়ে গেছে। রিপোর্ট অনুযায়ী, জনতা পার্টি () রাজ্যের রাজ্যপালকে চিঠি লিখে জানিয়েছে যে, রাজ্য সরকারের সম্পূর্ণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই। আর এর সাথেই BJP বিধানসভায় বিশেষ অধিবেশন ডাকার দাবি তুলেছে।

মদ্যপ্রদেশে বিজেপি আর বিরোধী নেতা গোপাল ভার্গভ মিডিয়ার সাথে কথা বলায় সময় বলেন, আমরা একটি অনুরোধ পত্র রাজভবনে পাঠিয়েছে। উনি বলেন, ওই চিঠিতে রাজ্যপালকে বিধানসভায় বিশেষ অধিবেশন ডাকার দাবি করা হয়েছে। অনুরোধ পত্রে বলা হয়েছে যে, রাজ্যে ের নেতৃত্বাধীন সরকারের সংখ্যাগরিষ্ঠতায় নেই। আর এই জন্যই বিশেষ অধিবেশন ডেকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করার জন্য বলা হয়েছে।

আপনাদের জানিয়ে রাখি, বিজেপির রাষ্ট্রীয় মহাসচিব কৈলাশ বিজয়বর্গীয় মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করে বলেছিলেন, লোকসভা নির্বাচনের ২০ থেকে ২২ দিন পর রাজ্যে কমলনাথ মুখ্যমন্ত্রী থাকবে কি না থাকবে, সেটাই সবথেকে বড় প্রশ্ন।
উনি এটাও বলেছিলেন যে, কংগ্রেস সভাপতি রাহুল বলেছিলেন যে, সরকার গড়ার ১০ দিন পর ঋণ মুকুব না হলে মুখ্যমন্ত্রী পালটে দেওয়া হবে। উনি বলেন, এরকম করেননি, কিন্তু কংগ্রেস বিধায়ক এরকম করবে। কারণ মানুষেরা কংগ্রেসের বিধায়কদের গ্রামে ঢুকতে দেয়নি।
আপনাদের জানিয়ে রাখি, মধ্যপ্রদেশে মত ২৩০ বিধানসভা আসনে কংগ্রেস ১১৪ টি আসনে জয়লাভ করেছে। বিজেপি ১০৯ টি আসনে নিজেদের ক্ষমতা বজায় রেখেছে। দুটি আসনে বহুজন সমাজ পার্টি। আর পাঁচটি আসন অন্যান্যরা দখল করতে সক্ষম হয়েছে। কংগ্রেস সেখানে ১১৬ এর ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছাতে পারেনি। আর এরপর বহুজন সমাজ পার্টির সমর্থনে কংগ্রেস এখানে সরকার গঠন করে।
আপনাদের জানিয়ে রাখি, বেশ কদিন ধরে গণধর্ষণ মামলা নিয়ে উত্তাল মধ্যপ্রদেশ। এক দলিত মহিলাকে গণধর্ষণ করে হত্যা করার চেষ্টা করেছিল একদল । ধর্ষিতা দলিত মহিলা ছিলেন, এবং মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেসকে সমর্থন করা বহুজন সমাজ পার্টির সুপ্রিমো নিজেকে দলিত প্রেমী বলেই পরিচয় দেন। এই ঘটনার পর তিনদিন আগে বহুজন সমাজ পার্টির সুপ্রিমো মায়াবতী কংগ্রেস সরকারের থেকে সমর্থন ফেরত নেওয়ার হুমকিও দেন।