Press "Enter" to skip to content

বড়ো খবর: LOC তে বোফোর্স কামান নামালো ভারত!  করা হতে পারে পাকিস্তানের শেষ চিকিৎসা।

নরেন্দ্র মোদি একজন এমন নেতা যে তিনি কখন কি করবে তার অনুমান কেউ লাগাতে পারে না। নোট বন্দি করা হোক বা সার্জিক্যাল স্ট্রাইক বা এয়ার স্ট্রাইক, সব কিছুই হটাৎ করে হয় আর কেউ জানতেও পারে না যে কখন কি হতে চলেছে।জম্মু কাশ্মীর নিয়ে যে সব খবর সামনে আসছে তার থেকে এইটুক তো বোঝা যাচ্ছে যে জম্মু কাশ্মীর ও তার আসে পাশে অনেক কিছু এরকম হবে যার অনুমান জনগণ করতে সক্ষম নয়। এটি বলা হচ্ছে যে জম্মু কাশ্মীরের উপর দিয়ে ধারা 370 ও 35A  সরিয়ে দেওয়া হতে পারে। এই ধারা গুলির কারণে  অন্য রাজ্যের কেউ জম্মু কাশ্মীরে জায়গা কিনতে পারে না।

কাশ্মীর কিছু বিশেষ অধিকার পায় আর এই কারণেই সেনারা মন খুলে সন্ত্রাসবাদকে দমন করতে পারে না। এবং যেই সব হিন্দুদের কাশ্মীর দিয়ে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে তাদের পুনরায় ফেরানো যাবে। কিন্তু এই ধারা সরানো নিয়ে পাকিস্তানের অনেক নেতা যেমন মেহবুবা মুফতি ও এছাড়া অনেক ধার্মিক উন্মাদী নেতারা হুমকি দিয়েছে যাতে এই ধারাকে সরানো না হয়। কিন্তু ভারত  সরকার কাউকে ভয় পায় না তাই এই ধারাকে সরিয়ে দেওয়া হতে পারে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

এছাড়া এটাও শোনা যাচ্ছে যে, জম্মুকে আলাদা রাজ্য  করে দেওয়া হবে এবং কাশ্মীর এবং লাদাখকে কেন্দ্র শাসিত প্রদেশ করে দেওয়া হতে পারে।
এই সব খবরের মধ্যে আরেকটি খবর সামনে এসেছে যে হতে পারে মোদির মনে অন্য কিছু চলছে। হতে পারে POK(পাক অধিকৃত কাশ্মীর) এর উপরে সরকার কোনো একশন নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
এইসব মধ্যে আরেকটি খবর সামনে আসছে। খবর অনুযায়ী, ভারতীয় সেনা বোফোর্স কামান বা তোপ লাগানো শুরু করে দিয়েছে।

বোফোর্স কামান বা তোপ  কোনো সাধারন কামান বা তোপ নয়, এটা খুব হেভি তোপ বা কামান। শত্রুদের সীমার ভেতর ঘাতক প্রহার করার জন্য এটি ব্যবহার করা হয়। এই তোপ বা কামান কে ব্যাবহার করেই ভারত কারগিলের যুদ্ধ জয় করেছিল। কারগিল যুদ্ধের সময় পাকিস্থানের বেশির ভাগ ঘাঁটিকে বোফোর্স দ্বারা উড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। এবার এটিকে পাকিস্তান সীমায় পোস্ট করে দেওয়া হয়েছে।
ভারতীয় সেনার মুভমেন্ট হচ্ছে এবং অনেক রকম ভাবে একশন সামনে আসছে, পাকিস্থানে এইসব নিয়ে ভয়ে বা আতঙ্কের  পরিবেশ সৃষ্টি হয়ে আছে।

এমনকি পাকিস্থানের নেতা, বুদ্ধিজীবী ও কাশ্মীরের উন্মাদী শক্তিও আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। আগেই জম্মু-কাশ্মীরে ৩৮ হাজারের অতিরিক্ত সৈনিকদের নিযুক্তি করা হয়েছে। পাকিস্তান সিজ ফায়ারের উলঙ্ঘন করেছিল, তার পাল্টা জবাবে পাকিস্থানের ৭ জন জঙ্গিদের শেষ করে দেওয়া হয়েছে এবং এক হাইড্রোপাওয়ার প্ল্যান্টকে ক্ষতিগ্রস্থ করা হয়েছে। আর এখন বোফোর্স কামান নামিয়ে পাকিস্তানের প্রতি ভারত নিজের ইঙ্গিত স্পষ্ট করে দিয়েছে।