Press "Enter" to skip to content

আতঙ্কবাদী, নকশালী, রোহিঙ্গাদের জন্য সময় আছে ইনাদের কাছে, হিন্দুদের জন্য নেই কোনো সময়।

আজ দেশের ে বসে থাকা জাস্টিসরা এটা প্রমান করে দিয়েছেন যে মামলা ইস্যুতে রায় দেওয়ার ক্ষমতা উনাদের মধ্যে নেই। এবার কোর্টকে দূরে রেখে কেন্দ্র সরকার একমাত্র হিন্দুদের আস্থার ভরসা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ কোর্ট এর জাজরা এই মামলায় রায় দিতে পারবে না। আজ সুপিম কোর্টের ৩ জাজের বেঞ্চ ৩ মিনিট শুনানির পর ৩ মাসের জন্য মামলা ঝুলিয়ে রেখে দিয়েছেন। আসলে আজ কোনো শুনানি হয়নি বরং সমস্থটাই ভণ্ডামি হয়েছে। কংগ্রেস ও গান্ধী পরিবারের ঘনিষ্ট জাজ ও ের বিরুদ্ধে থাকা উকিলেরা আজ সফল হয়েছে। জানিয়ে দি, মাসের পর এই মামলায় বেঞ্চ বসেছিল এবং ৩ মিনিট সাজানো নাটকের পর মামলা ৩ মাস ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে।

৩ মিনিট তো শুধুমাত্র ফাইল খুলতেই লেগে যায়, এই জাজের কি শুনানি করেছে সেটা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করতে শুরু করেছে হিন্দু সমাজ। আজ আদালতের জাজরা সাফ করে দিয়েছে যে এনাদের কাছে শুধু আতঙ্কবাদী, নকশালী ও পাদরিদের জন্য সময় আছে কিন্তু হিন্দুদের আস্থা রামমন্দিরের জন্য এনাদের কাছে সময় নেই। কোনো আতঙ্কবাদীর কেস হলে তৎকাল রাতে আদালত খুলে শুনানির জন্যে বসে যাওয়া হয়। কিছুদিন আগেই অর্বান নকশালীরা গেপ্তার হলে জাজের ১ দিনের মধ্যে পুরো মামলা সমাপ্ত করে দেয়।

Ranjan Gogoi - রঞ্জন গগৈ
Ranjan Gogoi – রঞ্জন গগৈ

কিন্তু কংগ্রেসের বিরুদ্ধে কোনো মামলা হোক বা হিন্দুদের বিবাদে মামলা হলে জাজেরা তারিখের পর তারিখ দিয়ে যান। প্রসঙ্গত জানিয়ে দি, আজকের রায়ের পর থেকে জাস্টিস রঞ্জন গগৈ এর উপর মানুষ প্রশ্ন তুলতে শুরু করে দিয়েছেন। যেহেতু জাস্টিস গগৈ এর বাবা কংগ্রেস নেতা ছিলেন তাই তিনি রামমন্দির মামলায় দেরি করেছেন বলে অভিযোগ তুলেছে অনেকে।

জানিয়ে দি, ভারতে চিফ জাস্টিস নির্বাচনের ক্ষেত্রে তেমন কোনো বিশেষ যোগ্যতা প্রয়োজন হয়না, শুধুমাত্র অভিজ্ঞতা ও বরিষ্ঠতা দেখেই চিফ জাস্টিস নির্বাচিত হয়। এখন কিছুজন এই পুরো ব্যবস্থাকে বদলে ফেলার জন্যেও দাবি তুলেছে। তবে আপাতত কংগ্রেস তাদের হিন্দু বিরোধী ষড়যন্ত্রে সফল হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।