Press "Enter" to skip to content

যে কাজ করতে মায়াবতী ও অখিলেশ ভয় পেতেন যোগী আদিত্যনাথ তা এক বছরে ৪ বার করে দেখালেন।

যখন রাজনেতারা জনগণের সেবা থেকে নিজের আসন বা পদকে প্রাধান্য দেন তখন তারা নানান রকমের অন্ধবিশ্ মেনে চলেন। এই সমস্থ নেতারা চান সে সমস্থ নিয়মের যেন পালন হয় এবং সেই সমস্থ অন্ধবিশ্বাসকে যেন বিশ্বাস করা হয় যেগুলো তাদের পদকে রক্ষা করতে পারে। এর সবথেকে সঠিক উদাহরণ হলো ে পূর্ব এবং বসপা সুপ্রিমো মায়াবতী।এই দুজন উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের নয়ডা যেতে এই জন্য কেঁপে উঠতেন যে তাদের চলে যাবে। অর্থাৎ তারা বিশ্বাস করতেন যে দিল্লীর কাছে উপস্থিত নয়ডাতে পা রাখলে তারা মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে সরে যাবেন।

কিন্তু উত্তরপ্রদেশে আদিত্যনাথ আসার পর থেকে তাদের এই অন্ধবিশ্বাস কয়েকবার ভেঙে দিয়েছেন। আপনাদের জানিয়ে রাখি যোগী আদিত্যনাথ আগের বছর ডিসেম্বর মাসে প্রথম এই অন্ধবিশ্বাস ভেঙেছিলেন।আপনাদের আরো জানিয়ে দি, উত্তরপ্রদেশে নয়ডাকে নিয়ে কথিত আছে, যে ব্যাক্তি এই স্থানে আসবে তার শাসন ক্ষমতা চলে যাবে। এই কথার উপর বিশ্বাস করেই মায়াবতী ও যাদব নয়ডা যাওয়া ত্যাগ করেছিলেন। নয়ডার মানুষ চাইতেন যে তাদের দ্বারা নির্বাচিত মুখ্যমন্ত্রী একবারের জন্য হলেও তাদের এলাকায় আসুক কিন্তু বহুবছর ধরে তাদের এই স্বপ্ন অখিলেশ ও মায়াবতীর আমলে ্পূর্ন থেকে যায়।

শেষমেষ যোগী আদিত্যনাথজি মুখ্যমন্ত্রী হলে নয়ডাবাসীর আশা পূরণ হয়। যোগী আদিত্যনাথ এখন পর্যন্ত মোট ৩ বার নয়ডা গিয়েছেন এবং আজ আরো একবার নয়ডা যাত্রা করবেন বলে জানা গিয়েছে। আজ নয়ডাতে কোরিয়ার একটা ফোন কোম্পানির উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে যোগীজি উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গিয়েছে। আজকের নয়ডা যাত্রাকে নিয়ে যোগীজি মোট ৪ বার নয়ডা যাত্রা করে বিরোধীদের কিছু শিক্ষা েন বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।