Press "Enter" to skip to content

ধর্মান্তরণ আটকাতে ইসলাম ও খ্রিষ্টানের উপর চীন করলো এক বিরাট সার্জিক্যাল স্ট্রাইক।

চিনে কোনো ধার্মিক কট্টরপন্থা চলবে না এই বিষয় আগেই পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিয়েছিল । এখন ইসলামিক কট্টরপন্থার পরে খ্রিস্টান কট্টরপন্থার ও মিশনারির বিরুদ্ধে লাগাম দিতে শুরু করেছে। চিন তাদের দেশে সবথেকে বড় চার্চে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে কারণ সেখান ধর্মান্তরনের কাজ শুরু হয়েছে। যদিও ভারতে এই রকম ধর্মান্তরণ বহু দশক থেকে চলে আসছে। এমনকি ভারতের উত্তরপূর্বের কিছু রাজ্যকে খ্রিস্টান বহুল করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তাদের দেশে ধর্মান্তরণ আটকাতে শুরু করেছে। জানিয়েছে যদি কাউকে খ্রিস্টানে পরিণত করা হয় তাহলে সেই ব্যাক্তির নিষ্ঠা ও শ্রদ্ধা ের বদলে রোমের প্রতি বেড়ে যাবে। ফলে সেই ব্যক্তি ের বদলে রোমের হিতে কথা বলবে এবং ের জন্য একটা দেশদ্রোহীতে পরিণত হবে। এইরকম ব্যাক্তি থেকে ের সমস্যা তৈরি হবে তাই  কোনোভাবেই ধর্মান্তরণ করতে দেওয়া যাবে না।

চীন জানিয়েছে, ‘ আমরা জানি আমাদের বিরোধ পুরো বিশ্বের মানবঅধিকার সংগঠনগুলি শুরু করে দিয়েছে কিন্তু আমাদের প্রথমিকতা মানবঅধিকার নয় বরং আমাদের প্রথমকিতা চীন। এই কারণে আমরা যে অপেরাশন শুরু করেছি তা বন্ধ হবে না।’চীন বাইবেল ক্রস জমা করে সেগুলোকে লাগাতার জ্বালিয়ে দিতে শুরু করেছে। এক,দুটো নয় ৩০ এর বেশি বড়ো বড়ো চার্চকে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সেখানে বাইবেল ক্রস পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

যীশুর মূর্তি ভেঙে বদলে জিনপিং এর ছবি লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। মসজিদের পর এবার প্রত্যেক চার্চে চীনের পতাকা লাগানো অনিবার্য করে দিয়েছে। চীনের দাবি একটা ব্যক্তিকেও খ্রিস্টান হতে দেওয়া হবে না, যারা খ্রিষ্টান হয়েগেছে তাদেরকে আবার পাক্কা চীনি করা হবে। আর এর জন্য কাউকে তোয়াক্কা করা হবে না। চীন সরকারের কড়া নির্দেশ, কাউকে বিদেশি ধর্ম পালন করতে দেওয়া যাবে না। তাদের দাবি কোনো ব্যক্তি খ্রিষ্টান হলে তারা রোমের প্রতি শ্রদ্ধা রাখে, কোনো ব্যক্তি মুসলিম হলে তারা আরবের প্রতি শ্রদ্ধা রাখে। এমন লোককে চীন বরদাস্ত করবে না, তাতে মানব অধিকার হননের যতই অভিযোগ তাদের উপর আসুক।

যদিও চিন বৌদ্ধ ধর্মের ও হিন্দু ধর্মের মানুষদের উপর কোনো কড়া পদক্ষেপ নিচ্ছে না। হিন্দু ও বৌদ্ধ ধর্মের মানুষদেরকে নিজের নিজের ধর্ম পালনের জন্য সম্পুর্নভাবে স্বাধীনতা প্রদান করা হয়েছে। হেনান সীমান্তে প্রত্যেক চার্চে ও মসজিদে রাষ্ট্রপতি জিনপিং এর ছবি লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং রাষ্ট্রপতিকে পুজো করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যাতে তারা পাক্কা চীনি হতে পারে। নির্দেশ কোনো নরম ভাবে নয় বরং শক্তি প্রদর্শন করে দেওয়া হয়েছে। দেখুন ভিডিও-