Press "Enter" to skip to content

JDS ও কংগ্রেস নেতাদের মধ্যে ব্যাপক লড়াই! পুলিশ এসেও সামলাতে পারলো না দুই দলকে।

কর্ণাটকের JDS ও কংগ্রেসের জোট সরকার রয়েছে। কিন্তু ক্ষমতায় আসার আগে দুটি পার্টি একে অপরের বিরুদ্ধে প্রচার করেছিল। কিন্তু শেষমেষ বিজেপিকে আটকানোর জন্য দুই কট্টর বিরোধী পার্টি জোট করে নেয়। কংগ্রেস পার্টি BJP কে আটকানোর জন্য মুখ্যমন্ত্রীর আসন কুমারস্বামীকে দিয়েছিল। কুমারস্বামী মুখ্যমন্ত্রী হয়ে গেছেন ঠিকই কিন্তু উনার আসন কম, তাই কংগ্রেস পার্টির সদস্যরা উনাকে তোয়াক্কা করার না।

কংগ্রেসের বিধায়ক ও মন্ত্রীরা প্রায় সময় মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামীকে কথা শোনায়। মিডিয়ার দ্বারা বহুবার কুমারস্বামী তার দুখঃ প্রকাশ করেছেন। উনি অনেকবার বলেছেন, আমি সরকার চালাতে চালাতে হিমশিম খাচ্ছি। সরকারের কংগ্রেস কর্মীরা উনাকে অসম্মান করে বলেও উনি অভিযোগ তোলেন। তবে JDS ও কংগ্রেসের মধ্যে বিবাদ এতদিন মুখের তর্কাতর্কির মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। তবে এখন কর্ণাটকের রাজনৈতিক পরিস্থিতি আরো গম্ভীর হয়ে উঠেছে।

এখন কর্ণাটকের JDS ও কংগ্রেসের নেতা কার্যকর্তারা একে অপরের মাথা ভাঙতে শুরু করেছে। মামলা কর্ণাটকের মালার এলাকায় যেখানে মিল্ক ফেডারেশনের নির্বাচন নিয়ে JDS ও কংগ্রেসের কার্যকর্তা একে অপরের মাথা ভাঙতে শুরু করেছিল।প্রথমে JDS নেতারা কংগ্রেসের নেতাদের উপর আক্রমণ করে। এরপর কংগ্রেসের নেতাররা একজোট হয়ে পাল্টা আক্রমণ করে। যারপর দুই দলের কার্যকর্তাদের মধ্যে লড়াই শুরু হয়ে যায়। স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে যে দুই দলের নেতাদের ও কর্মীদের মধ্যে মতো নীতিগত, আদর্শগত কোনো মিল নেই। ফলে এই সরকার বেশিদিন টিকে থাকা খুবই মুশকিল।