অবাক কান্ড! ক্যাম্পাসকে ধর্মনিরপেক্ষ আখ্যা দিয়ে কলেজে সরস্বতী পুজা নিষিদ্ধ করল উপাচার্য

কেরলের কোচির এক বিশ্ববদ্যালয় উত্তর ভারতের ছাত্রদের ক্যাম্পাসে সরস্বতী পুজা করার জন্য অনুমতি দিলো না। বিশ্ববদ্যালয় থেকে ক্যাম্পাসকে ধর্মনিরপেক্ষ আখ্যা দিয়ে ক্যাম্পাসে সরস্বতী পুজা নিষিদ্ধ করল কতৃপক্ষ। এই ঘটনা কোচি ইউনিভার্সিটি অফ সায়েন্স এন্ড টেকনলজি এর অন্তর্গত কোচি ইউনিভার্সিটি কলেজ অফ ইঞ্জিনিয়ারিং এর Kuttanad ক্যাম্পাসের।

ওই ক্যাম্পাসে কিছু উত্তর ভারতীয় ছাত্রেরা বসন্ত পঞ্চমি উপলক্ষে সরস্বতী পুজা করার জন্য উপাচার্য এর কাছে অনুমতি চেয়েছিল। ছাত্রেরা উপাচার্য এর কাছে গত ২৫শে জানুয়ারি চিঠি লিখে এই অনুমতি চেয়েছিল। ছাত্রদের লেখা চিঠির জবাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভায়েস চ্যান্সেলর উত্তর দিয়ে লেখেন, ‘ উত্তর ভারতীয় ছাত্রদের দ্বারা সরস্বতী পুজার আয়জনকে অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। কারণ আমাদের ক্যাম্পাস ধর্মনিরপেক্ষ। এর জন্য আমরা ক্যাম্পাসে এরকম কোন কাজের অনুমতি দিতে পারিনা”

হিন্দু পঞ্জিকা অনুসারে প্রতি বছর মাঘ মাসে শুক্ল পঞ্চমীতে বিদ্যা দেবী মা সরস্বতীর উপাসনা করা হয়। এই পর্ব কে বসন্ত পঞ্চমী বলা হয়ে থাকে। এই দিনটিকে বছরের কিছু গুরুত্বপূর্ণ দিনের মধ্যে একটি ধরা হয়। এই দিনে স্কুল অথবা কলেজ এবং কোচিং সেন্টার গুলোতে যেখানে বিদ্যা অর্জন করা হয়। সেখানে মা সরস্বতীর বন্দনা করা হয়।

পৌরাণিক মতে যাদের কুষ্ঠী তে বিদ্যা আর বুদ্ধি নেই তাঁরা ওই বসন্ত পঞ্চমীর দিনে মা সরস্বতীর বন্দনা করে বিদ্যা লাভের আসা করে। এই বছর গোটা ভারতে বসন্ত পঞ্চমী ১০ই ফেব্রুয়ারি পালিত হবে।  হিন্দু ধর্ম মতে, বসন্ত উৎসব প্রকৃতির উৎসব।

এটাই প্রথমবার না যে কেরলের কোন কলেজে সরস্বতী আরাধনা বন্ধ করা হল। এর আগেও বহুবার কেরলের বিভিন্ন কলেজে হিন্দু উৎসব পালনে বাধা দেওয়া হয়। এমনকি কেরলের একটি কলেজে বাম ছাত্র সংগঠন এসএফআই দ্বারা মা সরস্বতীর নগ্ন ছবি এঁকে ওনার অপমান করা হয়।

ওই ঘটনার পর তাঁদের বিরুদ্ধে কোন ব্যাবস্থা ও নেয়নি কলেজ কর্তৃপক্ষ। শুধু মা সরস্বতী না, কেরলে বহুবার হিন্দু ধর্মকে অপমান করে অনেক কাজ করা হয়। কিন্তু তার বিরুদ্ধে কোন মানবতাবাদী আর ধর্মনিরপেক্ষদের নিন্দা করতে শোনা যায় না!

One Comment

Leave a Reply

you're currently offline

Open

Close